| রাত ১:০২ - রবিবার - ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ - ১৪ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

করোনাকালে মানবিক সেবায় প্রশংসিত ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  করোনা আক্রান্তদের হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা, লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতকরণ, নিজস্ব অর্থায়নে অসহায়, দিন এনে দিন খাওয়া (অস্বচ্ছল) ও ভাসমানদের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ, ন্যায্যমূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রিসহ নানা ধরনের কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের সদস্যরা।

 

করোনা মহামারীর সময়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অসহায় ও দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ। অন্যদিকে অইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বজায় রাখতে নিয়মিত অভিযানসহ স্বাভাবিক কর্মকাণ্ড অব্যাহত রয়েছে।

 

আর সব কর্মকাণ্ড সরাসরি মনিটরিং করছেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহমার উজ্জামান। করোনার এই দুর্যোগময় মুহুর্তে পুলিশের মানবিক এসব কর্মকাণ্ড সর্বত্র প্রশংসিত হয়েছে।

 

নিজেদের বেতনের টাকা, বৈশাখী ভাতা এবং পুলিশের আভ্যন্তরীণ কেনাকাটায় অর্থ বাঁচিয়ে জেলার প্রায় ছয় হাজার কর্মহীন অসহায় ও হতদরিদ্র পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ।

 

 

তাছাড়া বাড়ি বাড়ি গিয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি নিজস্ব অর্থায়নে ন্যায্যমূল্যে পণ্য সরবরাহ করছেন পুলিশ সদস্যরা। জনসচেতনতা সৃষ্টিতে পুলিশের নিজস্ব শিল্পীদের মাধ্যমে জালার বাসিন্দাদের সচেতন করা হয়।

পাশাপাশি ধান কাটার জন্য শ্রমিক প্রেরণ, বিভিন্নস্থানে আটকে পড়া শ্রমিকদের মানবিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।

 

এছাড়া জেলা পুলিশ বস্তিবাসী, অসহায়, অস্বচ্ছল, দিন এনে দিন খাওয়া, শ্রমিক, বেদে পরিবার, নাপিত, কুলি, নৌকা মাঝি, এতিমদের খুঁজে খুঁজে তালিকা করে তাদের ঘরে ঘরে খাদ্য সহায়তা করে ময়মনসিংহ পুলিশ মানবিক হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছেন।

 

এছাড়াও লকডাউনে বিভাগীয় নগরীতে না খেয়ে ফুটপাতে পড়ে থাকা ভাসমানদের আহার যুগিয়েছেন পুলিশ সুপার। রান্না করা খাবারের প্যাকেট নিয়ে শহরে ঘুরে ঘুরে ভাসমান না খাওয়া মানুষের পেটে নিয়মিত আহার তুলে দেয়া হয়।

 

পুলিশের এমন মানবাধিকতার খবর জেলার সকলস্তরে ব্যাপকভাবে প্রচার হলে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহমার উজ্জামানআসহ পুলিশ সদস্যদের ফেইসবুকে আবেদন করে পঙ্গু, স্বামীহারা পরিবার। তাৎণিক ওসি ডিবি শাহ কামাল আকন্দের মাধ্যমে অসহায় পরিবারদের খুঁজে খুঁজে খাবার পৌছে দেন পুলিশ সুপার। একই সাথে এতিমদের বাড়ি বাড়ি খাদ্য পৌঁছে দিয়ে নান্দনিক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন পুলিশ সদস্যরা।

 

 

করোনা প্রতিরোধে নানা ধরনের কর্মসূচি বাস্তবায়নের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো রাখাতে দায়িত্বশীল জেলা পুলিশ স্থানীয়দের কাছে সেবকে পরিচিতি লাভ করেছে।

 

জানতে চাইলে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহমার উজ্জামান বলেন, প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং আইজিপি মহোদয়ের মানবিক নির্দেশনা মেনে আমরা সর্বদা জনসাধারণের পাশে রয়েছি। করোনায় সেবা দিতে গিয়ে ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আক্রান্ত হলেও আমরা থেমে নেই।

 

সোমবার ( ৮জুন )  সকালে মাঠ পর্যায়ে করোনা সংক্রমন রোধ, সামাজিক দূরত্ব বজায় এবং স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী যথাযথভাবে পরিধান করতে জনগনকে সচেতন করার লক্ষ্যে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় কর্মরত ছিলেন জেলা পুলিশের সদস্যরা। এসময় যাদের মাস্ক নেই তাদের’কে মাস্ক প্রদান করা হয় পুলিশের পক্ষ থেকে। নগরবাসী’র মতে, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরুর থেকেই জেলা পুলিশের সদস্যরা ইতিবাচক ভূমিকা পালন করে জনসাধারণের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৪:৫৯ অপরাহ্ণ | জুন ০৮, ২০২০