| রাত ৯:৫০ - বুধবার - ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ১৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

মুক্তি পাচ্ছেন ময়মনসিংহ বিভাগের ৭৭ কারাবন্দি

লোক লোকান্তরঃ  করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে আরো ২৮৮৪ কারাবন্দিকে মুক্তি দেওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। যাদের মাঝে ময়মনসিংহ বিভাগের ৭৭ জন কারাবন্দি রয়েছে।

 

ময়মন‌সিংহ বিভা‌গের ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগারে ৩০, জামালপুরে ১৪, নেত্রকোনায় ২০ ও শেরপুর জেলা কারাগারে ১৩ জন রয়েছেন।

 

এর আগে দুদফায় ৫৫৫ জনকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। বাকি দুই হাজার ৩২৯ জনকে মুক্তি দেওয়ার ব্যাপারে জেলারদের কাছে শুক্রবার চিঠি দেওয়া হয়েছে। কারা অধিদপ্তরের এআইজি মুহাম্মদ মঞ্জুর হোসেন আজ শনিবার এ তথ্য জানিয়েছেন।

 

মুহাম্মদ মঞ্জুর হোসেন বলেন, ‘প্রথম দুদফায় আমরা ৫৫৫ কারাবন্দিকে মুক্তি দিয়েছি। চূড়ান্ত ধাপে, অর্থাৎ আগামী সোমবারের ভেতরে দুই হাজার ৩২৯ কারাবন্দিকে মুক্তি দেওয়া হবে।

 

মুক্তি দেওয়ার জন্য যেসব প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয়, সেসব কাজ প্রায় শেষ। কারা অধিদপ্তরের ডিআইজি অফিসের মাধ্যমে মুক্তি দেওয়া হবে এমন কারাবন্দিদের তালিকা দেশের ৬৮টি কারাগারে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।’

 

মঞ্জুর হোসেন আরো বলেন, ‘দেশের ১৩টি সেন্ট্রাল জেল ও ৫৫টি জেলা কারাগারের জেলারদের কাছে গতকালই এই তালিকা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। জেলাররা কয়েদিদের মুক্তি দেওয়ার কাজও এগিয়ে নিচ্ছেন। এ দুই হাজার ৩২৯ জনের মধ্যে কিছু কয়েদিকে এরই মধ্যে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

 

বাকিরা আগামী দুদিনের মধ্যে মুক্তি পেয়ে যাবেন। তবে যাদের জরিমানার টাকা বাকি, তাদের ছাড়তে একটু দেরি হতে পারে। আর জরিমানার টাকা পরিশোধ করলে তারাও দুদিনের মধ্যে মুক্তি পাবে।’

 

কারা অধিদপ্তরের এআইজি আরো বলেন, ‘এ দুই হাজার ৩২৯ কারাবন্দির মধ্যে ঢাকা বিভাগের ৯৫৩ জন, ময়মনসিংহ বিভাগের ৭৭, চট্টগ্রাম বিভাগের ৩৫৪, সিলেট বিভাগের ৬৯, খুলনা বিভাগের ১৫৮, বরিশাল বিভাগের ৯৭, রাজশাহী বিভাগের ৪২৩ ও রংপুর বিভাগের ১৯৮ জনকে মুক্তি দেওয়ার চিঠি এরই মধ্যে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।’

 

এর আগে গত ৪ মে সোমবার কারা মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজনস) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম মোস্তফা কামাল পাশা বলেছিলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে মোট দুই হাজার ৮৮৪ জন লঘু দন্ডপ্রাপ্ত কারাবন্দিকে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

 

এর ভেতরে ৫৫৫ জনকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। এসব বন্দি সর্বোচ্চ এক বছর কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। তাদের মধ্যে কারো সাজা প্রায় শেষের দিকে, কারো সাজা অর্ধেক হয়েছে। আমরা চাচ্ছি, কারাগার ফাঁকা হোক, লঘু অপরাধী বয়স্করা মুক্তি পাক। এখন কারাগার যত ফাঁকা হবে, তত ভালো।’

 

ফাইল ছবি

সর্বশেষ আপডেটঃ ৮:৫৫ অপরাহ্ণ | মে ০৯, ২০২০