| সকাল ৯:৩৪ - শনিবার - ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ - ৩রা শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

মাহমুদুল্লাহর শতক উদযাপনের পেছনের রহস্য!

লোক লোকান্তরঃ  শুক্রবারের সেঞ্চুরি দিয়ে তো নতুন রেকর্ডও গড়ে ফেলেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের ‘দ্য আনসিন হিরো’ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বাংলাদেশ ক্রিকেটে তিনিই একমাত্র ক্রিকেটার, যার আইসিসির ইভেন্টে সর্বোচ্চ তিনটি সেঞ্চুরি রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরেই বড় ইনিংস খেলতে পারছিলেন না ‘সাইলেন্ট কিলার’ খ্যাত মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

 

এজন্য তাকে কম সমালোচনা পোহাতে হয়নি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে শুরু করে টিম ম্যানেজমেন্ট পর্যন্ত কেউ ছেড়ে কথা বলেননি। এমনি তাকে বাদও দেয়া হয়েছিলো শ্রীলংকা সফরে।

 

তবে কথায় নয় কাজেই সব সমালোচনার জবাব দিলেন টাইগারদের এই ব্যাটিং স্তম্ভ। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে টিকে থাকতে হলে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জিততেই হতো টাইগারদের। এমন সমীকরণের মুখে কিউইদের দেয়া মামুলি টার্গেট তাড়া করতে নেমে কি বিপদেই না পড়েছিল সৌম্যরা।

 

একে একে ৩৩ রানের মধ্যে টপ অর্ডাররের ৪ ব্যাটসম্যানের বিদায়। এরপরেই ক্রিজে আসেন মাহমুদুল্লাহ। কিউই বোলারদের সামনে দেয়াল হয়ে দাঁড়িয়ে যান সাকিব ও মাহমুদুল্লাহ।

 

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আশায় বুক বাঁধতে থাকে সমর্থকরা। শেষ পর্যন্ত টাইগারদের এনে দেন কাঙ্খিত জয়। অন্যদিকে পূর্ণ করেন নিজের তৃতীয় শতক। এরপরেই তিনি ব্যতিক্রমী ভঙ্গিমায় উদযাপন করেন শতরান। ব্যাটের পেছন পাশ তুলে ধরেন ড্রেসিং রুমের সতীর্থদের দিকে। কিছু একটা দেখান তাদরে উদ্দেশ্যে। তারাও তার জবাব দেন।

 

 

আসলে তিনি কি দেখাচ্ছিলেন ব্যাট তুলে? সাংবাদিকদের পরে তিনি জানান, আসলে ব্যাটের পেছনে তার ছোট সন্তানের স্বাক্ষর করা ছিল।

 

দেশ ত্যাগের সময় ছোট ছেলে একটি ব্যাটে নিজের নাম লিখল। আর তাকে বলে দিয়েছিলো, ‘বাবা এই ব্যাট দিয়ে খেলো, ভালো খেলতে পারবে।’

 

মাহমুদুল্লাহ সেই ব্যাটে ভালো খেলেছেন এবং শত রান করেছেন। তিনি শতকের পর ওই কথাটিই বোঝাতে চেয়েছিলেন।

 

সীমিত ওভারের ক্রিকেটে সবমিলিয়ে তিনটি সেঞ্চুরি মাহমুদউল্লাহর। প্রথম দুটি করেছিলেন ২০১৫ বিশ্বকাপে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১০৩ রান খেলার পর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১২৮ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন বাংলাদেশের এই ব্যাটিং অলরাউন্ডার। শুক্রবার আবারও সেঞ্চুরির দেখা পেলেন তিনি।

 

সুত্রঃ যুগান্তর

সর্বশেষ আপডেটঃ ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ | জুন ১১, ২০১৭