| সকাল ৮:৫৪ - শনিবার - ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ - ৩রা শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

ত্রিশালে ৪৬৫ পরীক্ষার্থী পায়নি এসএসসির ফলাফল, বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক অবরোধ

এইচ.এম জোবায়ের হোসাইন, ত্রিশাল:    একদিকে আজ থেকে শুরু হচ্ছে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির আবেদন। অন্যদিকে আজও প্রকাশিত হয়নি ময়মনসিংহের ত্রিশালের ৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৪৬৫ শিক্ষার্থীদের ফলাফল। ফলে একদিকে যেমন অনিশ্চয়তায় তাদের জীবন। অন্যদিকে ক্ষোভ আর বিক্ষোভে রয়েছে ফলপ্রার্থীরা এবং ফলাফল যথা সময়ে প্রকাশিত না হওয়ায় শংকিত অভিভাবকরা।

 

জানাযায়, এস.এস.সি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল গত বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হলেও ময়মনসিংহের ত্রিশালে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধিনের ৮টি বিদ্যালয় তাদের ফলাফল পায়নি। ৮টি প্রতিষ্ঠানের ৪৬৫জন শিক্ষার্থীর ফলাফল প্রকাশিত না হওয়ায় বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা তাৎক্ষনিক বিক্ষোভ মিছিল করে।

 

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয় ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার ত্রিশাল কারিগরি ও বাণিজ্যিক কলেজ, ধানীখোলা কারিগরি ও বাণিজ্যিক কলেজ, নজরুল একাডেমী (ভোকেশনাল শাখা), নজরুল বালিকা উচচ বিদ্যালয় (ভোকেশনাল শাখা), কাটাখালি ওমর আলী উচ্চ বিদ্যালয় (ভোকেশনাল শাখা), গুজিয়াম আমিরাবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় (ভোকেশনাল শাখা), বাগান ইসলামিয়া আলিম মাদরাসা (ভোকেশনাল শাখা)’র ৮টি বিদ্যালয়ের ৪৬৫জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করলেও বৃহস্পতিবার ফালাফল প্রকাশিত হলেও তাদের ফলাফল প্রকাশিত হয়নি।

 

এ ঘটনায় ক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা বিকেলে বিক্ষোভ মিছিল করেছে। রোববার ফল প্রকাশিত হবে মর্মে কেন্দ্র সচিব, প্রতিষ্ঠান প্রধানদের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে শিক্ষার্থীরা নিরবতা পালন করলেও রোববার ফল প্রকাশিত না হওয়ায় তারা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহা সড়ক প্রায় দেড় ঘন্টা অবরোধ করে। সড়ক অবরোধের ফলে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের শান্ত করতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু জাফর রিপন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আশরাফুল ইসলাম মন্ডল, ত্রিশাল থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুজ্জামান শিক্ষার্থীদের শান্ত করেন এবং দ্রুত ফলাফল প্রকাশের জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নিবেন বলে জানালে শিক্ষার্থীরা অবরোধ তুলে নেয়।

 

এসময় শিক্ষার্থীরা সোমবার বিকাল ৪টার মধ্যে ফলাফল ঘোষণার আল্টিমেটাম দিয়ে অবরোধ প্রত্যাহার করে নিলেও গতকাল সোমবার ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি। বিকাল ৩টার দিকে ক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা উপজেলা পরিষদ চত্বরে অবস্থান নিলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু জাফর রিপন তাদেরকে কাছ থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত সময় নেন।

ত্রিশালের ৮টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের ফলাফল প্রকাশিত না হওয়ার ঘটনায় সাধারন শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ ঝাড়ছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে। ব্যাক্তিগত আইডিতে বিভিন্ন ধরনের স্ট্যাটাস ও কমেন্ট করে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন।

 

সাব্বির আহমেদ রনি নামের একজন লিখেছেন, কথা দিয়েছিলাম ত্রিশালের হতভাগা ৪৬৫জন শিক্ষার্থীর রেজাল্টের জন্য প্রয়োজনে রাজপথে নামব! জানিনা কতটুকু তাদের পাশে থাকতে পেরেছি, তবুও আজ ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে প্রায় ২ঘন্টা দরিরামপুর মোড়ে রাজপথে অবস্থান, অতপর টঘঙ কার্যালয়ে সকল ছাত্রদের সাথে বিকাল ৫টা পর্যন্ত সহাবস্থান, সর্বশেষে ইউএনও মহোদয়ের সাথে মতবিনিময় শেষে আগামীকাল (সোমবার) বিকাল ৪টা পর্যন্ত প্রসাশনকে দেওয়া সময় নির্ধারণ।

 

আহমেদ শামিম নামের একজন ফেইসবুক ব্যবহারকারী একটি স্ট্যাটাসে লিখেন, রেজাল্ট আসবেনা কেন? দোষ টা কার বা কাহাদের? ছাত্র জীবনে একজন ছাত্রের কাছে পরিক্ষার রেজাল্টের চাইতে আনন্দের আর কি হতে পারে? ত্রিশালের ৪৫০ এর ও অধিক ছাত্র ছাত্রীর এই না পাওয়া রেজাল্টএর গ্লানি কি পুনরায় দেয়া রেজাল্টের মাধ্যমে মুছন হবে? কাঙ্ক্ষিত সময়ের এই আনন্দ না দিতে পেরে অনাকাঙ্ক্ষিত এই আনন্দ কি বিস্বাদময় নয়!! শিক্ষকতা কি দায়িত্বপূর্ণ পেশার রোল মডেল নয়? তবে কেন প্রেক্টিকেল খাতার নাম্বার জমা পরবে না? এসব জঞ্জালময় দায়িত্বহীন বেক্তিদের অপসারন কি সময়ের দাবী নয়? অপসারনের দাবি করাটা কি অযৌক্তিক??? ছাত্র কল্যান পরিষদ ত্রিশাল এর পক্ষ থেকে অনতিবিলম্বে এসব দায়িত্বহীন বেক্তিদের অপসারন দাবী করছি……

 

ধানীখোলা কারিগরি ও বাণিজ্যিক কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, আমি সু-নিদ্রিষ্ট কোন কারন জানিনা তবে শুনেছি কারিগরি পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে ব্যবহারিক পরীক্ষার ফলাফল বোর্ডে প্রেরণ করা হয়নি। তাই ত্রিশালের কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধিনে পরীক্ষার্থীদের সকলেই ফেল করেছে।

 

কাটাখালি ওমর আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ মোজাম্মেল হক জানান, বিষয়টি কেন্দ্র সচিবকে অবহিত করলে তিনি জানান আমি বোর্ডে যোগাযোগ করে আপনাদেরকে জানাবো।

 

গুজিয়াম আমিরাবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল কালাম জানান, আমরা বাস্তব প্রশিক্ষন কোডে যথা সময়ে ফলাফল প্রেরণ করলেও মূল ফলাফলের সাথে সংযুক্ত হয়নি। বিষয়টি জানতে পেরে আমরা পরবর্তিতে আবারও জরিমানা দিয়ে জমা দিলেও ফলাফল আসেনি।

 

ত্রিশাল নজরুল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কারিগরি পরীক্ষার কেন্দ্র সচিব রফিকুল ইসলাম জানান, যথা সময়ে ব্যবহারিক পরীক্ষার ফল পাঠানো হলেও কি কারনে ফলাফল আসেনি তা বুঝে উঠতে পারছিনা তবে রোববার বোর্ডে খোজ নেওয়া হয়েছে। কন্ট্রোরাল স্যারের সাথে কথা হয়েছে।

 

তিনি বলেছেন সোমবার বিকেলে অথবা মঙ্গলবারের মধ্যে ফলাফল প্রকাশ হবে। তবে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ঝিল্লুর রহমান আনম জানান, এসএসসি ভোকেশনাল কেন্দ্রর পরীক্ষার্থীদের ব্যবহারিক পরীক্ষার নম্বরপত্র বোর্ডে জমা না হওয়ায় ফলাফল স্থগিত রয়েছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১:৪৭ পূর্বাহ্ণ | মে ০৯, ২০১৭