| রাত ৮:১৪ - রবিবার - ৯ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ২৬শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ - ২রা জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

শেরপুর সদরের এক ইউপিতে মনোনয়নপত্র বাতিল : প্রার্থী সংকটে দুটি ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থী দিতে পারেনি!

 

শেরপুর প্রতিনিধি:১৩ এপ্রিল ২০১৬, বুধবার,
প্রার্থী সংকটে শেরপুরের সদর উপজেলার দুটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দিতে পারেনি জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি। চতুর্থ ধাপে আগামী ৭ মে উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এসব ইউনিয়ন হচ্ছে গাজীরখামার, ধলা, পাকুরিয়া, ভাতশালা, কামারিয়া, রৌহা ও বাজিতখিলা।
গত ৭ এপ্রিল বৃহস্পতিবার ছিল মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন। কিন’ পাকুরিয়া ও রৌহা ইউনিয়নে বিএনপির কোন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দেননি। এদিকে বাছাইয়ে কামারিয়া ইউপিতে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী সুলতান আহম্মেদ স্বপনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। গত ১২ এপ্রিল মঙ্গলবার সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে এসব তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।
নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় ও দলীয় সূত্রে জানা গেছে, জনসংখ্যা ও আয়তনের দিক থেকে সদর উপজেলার সবচেয়ে বড় ইউনিয়ন হচ্ছে পাকুরিয়া। এ ইউপির ভোটার সংখ্যা প্রায় ৩০ হাজার। এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. হায়দার আলী। এ ইউনিয়নে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বীরা হচ্ছেন জাসদের মো. মোশাররফ হোসেন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আফজাল হোসেন, মোছা. সাজেদা হোসেন ও মো. গোলাম মোস্তফা। এ ইউনিয়নে বিএনপি কোন প্রার্থী দিতে পারেনি।
অপরদিকে রৌহা ইউনিয়নের ভোটার সংখ্যা হচ্ছে দশ হাজার চার শ জন। এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হচ্ছেন মো. সাইফুজ্জামান সোহেল। তাঁর একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ মো. শফিকুল ইসলাম মিজু। এ ইউনিয়নেও বিএনপি কোন প্রার্থী দিতে পারেনি।
বিএনপি সংশিৱষ্ট সূত্র জানায়, গত ২৯ ফেব্র্বয়ারী পাকুরিয়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপির ত্যাগী নেতা মো. আবুল কালাম আজাদ সদল বলে আওয়ামী লীগে যোগদান করায় যোগ্য প্রার্থীর সংকটে পাকুরিয়া ও রৌহা ইউনিয়নে বিএনপি কোন প্রার্থী দিতে পারেনি।
এদিকে সদর উপজেলার কামারিয়া ইউনিয়নে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী সুলতান আহম্মেদ স্বপনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম। গত ১১ এপ্রিল সোমবার বাছাইয়ের শেষ দিনে সুলতানের মনোনয়নপত্রে প্রস্তাবক ও সমর্থকের স্বাৰর জাল করার অভিযোগে তাঁর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয় বলে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম নিশ্চিত করেছেন।
পাকুরিয়া ও রৌহা ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থী না থাকা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সদর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক মো. হযরত আলী বলেন, নির্বাচনের শুর্বর দিকে অনেকেই প্রার্থী হতে আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। কিন’ পরবর্তীকালে তাঁরা আর প্রার্থী হতে রাজী হননি। ফলে প্রার্থী সংকটের কারণেই এ দুটি ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থী দেওয়া সম্ভব হয়নি।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৭:৪৯ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ১৩, ২০১৬