| রাত ১:০৮ - বৃহস্পতিবার - ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ - ৬ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

ক্রিকেটের পাশাপাশি ফুটবলকেও আবার জনপ্রিয় করতে হবে – কিশোরগঞ্জে সৈয়দ আশরাফ

সিম্মী আহাম্মেদ,১৬ জানুয়ারি ২০১৬ঃ
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন, এক সময় আমাদের দেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা ছিল ফুটবল। ফুটবলের জনপ্রিয়তার জায়গা আজ দখল করেছে ক্রিকেট। ক্রিকেট আজ সর্বোচ্চ শিখরে যাচ্ছে। আমরা ক্রিকেটে ভাল করছি। বিশ্বের বুকে আমাদের পরিচিতি বাড়ছে। কিন্তু এক সময় আমরা সাফ ফুটবলেও চ্যাম্পিয়ন ছিলাম। কাজেই ফুটবলকে নির্জীব হতে দেয়া যাবে না। ক্রিকেটের পাশাপাশি ফুটবলকেও আবার জনপ্রিয় করতে হবে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকালীন অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি প্রয়াত বাবার নামে কিশোরগঞ্জে ‘শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্মৃতি গাজী টায়ার টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সৈয়দ আশরাফ এসব কথা বলেন। তিনি কিশোরগঞ্জের ক্রীড়াঙ্গণের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সম্পর্কে আলোকপাত করতে গিয়ে বলেন, কিশোরগঞ্জে স্টেডিয়ামের নানামুখি উন্নয়নের জন্য ৩৬ কোটি ২৯ লাখ ১৮ হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। এর মধ্যে সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্টেডিয়ামের উন্নয়নের জন্য ১৫ কোটি ৩৮ লাখ ৯৩ হাজার টাকা, জিমনেশিয়ামের জন্য ১০ কোটি ৭৯ লাখ ৮২ হাজার টাকা এবং সুইমিং পুলের জন্য ১০ কোটি ১০ লাখ ৪৩ হাজার টাকা বরাদ্দ হয়েছে। শনিবার দুপুরে সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্টেডিয়ামে টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্টটির উদ্বোধন করেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এমপি। নাজমুল হাসান পাপন তার বক্তৃতায় বলেন, আজকে বিসিবির উদ্যোগে খুলনা, ফতুল্লার স্টেডিয়ামে ক্রিকেট খেলার আয়োজন করা হচ্ছে। কিশোরগঞ্জের সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্টেডিয়ামকেও বিসিবির আওতায় নিয়ে এর উন্নয়ন ঘটানো হবে যেন এখানে জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা খেলতে পারেন। তিনি বলেন, এক সময় প্রবাসী বাঙ্গালীদের সন্তানরা নানা কারণে বাংলাদেশে আসতে চাইত না। এখন তারাও বাংলাদেশের পতাকা আর জার্সি গায়ে দিয়ে প্রবাসের মাঠে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সমর্থনে উল্লাস করছে। ক্রিকেট আমাদের অনেক কিছু দিচ্ছে।
টুর্নামেন্ট কমিটির আহবায়ক জেলা মুক্তিযোদ্ধা যুব কমান্ডের সভাপতি অ্যাডভোকেট সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটুর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে টুর্নামেন্টের স্পন্সর প্রতিষ্ঠান গাজী গ্রুপের চেয়ারম্যান গোলাম দস্তগীর গাজী এমপি, কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের এমপি রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, মেহেরপুর-১ আসনের এমপি ফরহাদ হোসেন দোদুল এবং জাতীয় দলের ক্রিকেটার তাসকিন আহমেদ বক্তৃতা করেন।
এদিকে তাসকিন আহমেদকে দেখার জন্য বিভিন্ন স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রী সকাল থেকেই ভীড় জমায় শহরের আলোর মেলা এলাকার সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্টেডিয়ামে। স্টেডিয়ামে ঢুকতে না পেরে বিপুল সংখ্যক দর্শক সামনের রাস্তায় ভীড় করেন। স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে উপচে পড়া ভীড় থেকে কেবলই ‘তাসকিন’ ‘তাসকিন’ গর্জন। এক পর্যায়ে শত শত ভক্ত বাধা উপেক্ষা করে তাসকিনকে ঘিরে ধরে। এ সময় পুলিশকে পরিসি’তি সামাল দিতে বেগ পেতে হয়। তাসকিন তরুণ ক্রিকেটারদের আশ্বস্ত করে বলেন, আমরা যেমন বেশ ক’জন তরুণ ক্রিকেটার আজ জাতীয় দলে স্থান করে নিয়েছি, আপনারাও আন্তরিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে এক সময় জাতীয় ক্রিকেটার হবেন। তিনি দর্শকদের ভালবাসায় অভিভূত হন এবং সবার প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানান। অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক জিএসএম জাফরউল্লাহ, পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার হোসেন খান, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমএ আফজাল ও কিশোরগঞ্জ পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র মাহমুদ পারভেজ, টুর্নামেন্ট কমিটির সাধারণ সম্পাদক এম এ কব্বীহ পারভেজসহ বর্তমান ও প্রাক্তন ক্রিকেটারগণ উপস্থিত ছিলেন।
কিশোরগঞ্জের প্রথম বিভাগের ১২টি দলের অংশগ্রহণে টুর্নামেন্টটি উপলক্ষে শুক্রবার বিকালে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শহর দক্ষিণ করে। আর রাতে স্টেডিয়ামে আয়োজন করা হয় চোখ ধাঁধানো আতশবাজির। মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ও তার স্ত্রী শীলা ইসলামও স্টেডিয়ামে উপস্থিত থেকে আতশবাজি উপভোগ করেন। শনিবার উদ্বোধনী খেলায় শাহ আলম মেমোরিয়াল ৫ উইকেটে এলাইড ক্লাবকে পরাজিত করেছে। টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে এলাইড ক্লাব নির্ধারিত ২০ ওভারে ১২২ রান করে অলআউট হয়। জবাবে ১৯.২ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১২৩ রানের লক্ষ্যে পৌঁছায় শাহ আলম মেমোরিয়াল।
জেলা মুক্তিযোদ্ধা যুব কমান্ডের উদ্যোগে আয়োজিত টুর্নামেন্টে অংশ নেয়া দলগুলো হলো, মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্র, সদরুল আলম স্মৃতি সংসদ, নগুয়া ক্রিকেট ক্লাব, শাহ আলম মেমোরিয়াল স্পোর্টিং ক্লাব, শহীদ জাকির স্মৃতি সংসদ, এলাইড ক্লাব, বিট ক্রিকেট কোচিং সেন্টার, কুটিগিদ্দী বয়েজ ক্লাব, শোলাকিয়া ক্রিকেট ক্লাব, নবীন সুপার স্টার, রথখলা ক্রিকেট ক্লাব ও সৃষ্টি নবীন মেলা।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৮:১৮ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ১৬, ২০১৬