| দুপুর ১:৫৭ - রবিবার - ২৩শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ - ১৬ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

ঝিনাইগাতীতে সওজ’র ব্রীজ নির্মাণে অনিয়ম

ঝিনাইগাতী (শেরপুর) সংবাদদাতা, ৪ জানুয়ারি ২০১৬, সোমবার,
শেরপুরের সীমানত্ম সড়কে সওজ’র ব্রীজ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ব্রীজ নির্মাণ কাজে ব্যবহার কার হচ্ছে নিম্নমানের সামগ্রী ও প্রয়োজনের তুলনায় কম। অভিযোগে প্রকাশ চলতি অর্থ বছরে শেরপুরের সীমান্ত সড়কের নাকুগাও থেকে ধানুয়া কামালপুর পর্যন্ত ৭টি ব্রীজ ও ২টি কালভার্ট নির্মাণের জন্য সড়ক ও জনপদ বিভাগ ২১ কোটি টাকা ব্যয় সাপেক্ষে ঠিকাদার নিয়োগ দেয়। টেন্ডারের মাধ্যমে মেসার্স রিজভী কন্সট্রাকশন দরপত্রের মাধ্যমে এ প্যাকেজ কাজটি লাভ করে। কাজটি সম্পন্ন করতে সংশিস্নষ্ট দপ্তর থেকে যথারীতি কার্যাদেশও দেয়া হয়। কিন’ ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান এসব ব্রীজ ও কালভার্ট নির্মাণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম করে আসছে বলে এলাকাবাসীর পড়্গ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। অভিযোগে বলা হয়েছে, ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ব্রীজ নির্মাণের ড়্গেত্রে নিম্ন মানের রড, সিমেন্ট ও প্রয়োজনের তুলনায় কম সামগ্রী ব্যবহার করে আসছেন। এছাড়া স্থানীয় পাথর ও বালু সরকারি রাজস্ব ফাকি দিয়ে গারো পাহাড় থেকে সংগ্রহ করে ব্রীজ নির্মাণ কাজ করা হচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে, ব্রীজ নির্মাণ কাজে তদারকির দায়িত্বে নিয়োজিত সড়ক ও জনপদ বিভাগের এক শ্রেণির অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীর যোগসাজষে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান অবাধে নিম্ন মানের সামগ্রী ব্যবহার করে আসছেন। সরেজিমেন অনুসন্ধান গিয়ে ব্রীজ নির্মাণ স্থলে নিম্নমানের স্থানীয় পাথর স্তুপ করে রাখার দৃশ্য দেখা গেছে। এলাকাবাসীর মতে, এসব নিম্নমানের ও কম সামগ্রী ব্যবহার করে ব্রীজ নির্মাণ করা হলে তা স্থায়ীত্ব লাভের ক্ষেত্রে জটিলতার সৃষ্টি হতে পারে। এ ব্যাপারে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানে কর্তব্যরত ইঞ্জিনিয়ার মোঃ কামরম্নল হাসানের সাথে কথা হলে তিনি তাদের বিরম্নদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য নয় বলে জানান। শেরপুরের সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সুতপা চাকমা বিষয়টি দেখবেন বলে জানান।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৬:৩৭ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ০৪, ২০১৬