| রাত ৩:৫৫ - শুক্রবার - ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ - ১৪ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

শুক্রবার ২৫ ডিসেম্বর শুভ বড় দিন

অনলাইন ডেস্ক | ২৪ ডিসেম্বর ২০১৫, বৃহস্পতিবার,

কাল শুক্রবার ২৫ ডিসেম্বর, শুভ বড় দিন। খ্রিস্টানদের ঘরে ঘরে উৎসবের আনন্দধারা। বহুবর্ণ আলোকের রোশনাইয়ে ভেসে যাচ্ছে গির্জা, গৃহ-দুয়ার আর অভিজাত হোটেলগুলো। বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশন, বেসরকারি টিভি ও রেডিও দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে বিভিন্ন অনুষ্ঠান সমপ্রচার করছে। সংবাদপত্রগুলো বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করেছে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি এডভোকেট আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা,  বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ,  বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, জাতীয় পার্টি জেপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও ধর্মীয় সমপ্রদায় পৃথক বাণীতে খ্রিস্টান সমপ্রদায়ের মানুষকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।
দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশেও সান্তাক্লজ আসবেন নানা উপহার ও চমক নিয়ে। সান্তা তার ঝুলিতে করে কি নিয়ে আসবেন তার অপেক্ষায় থাকে শিশুরা। বিবিসি জানায়, বিশ্বব্যাপী নানা দেশের মত বাংলাদেশেও খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীরা পালন করছেন বড়দিনের উৎসব। কিন্তু এদেশে ঈদ ও পূজা যতটা স্বাচ্ছন্দ্য ও আড়ম্বরের সাথে পালিত হয়, সেই তুলনায় খ্রীষ্টান সম্প্রদায়ের জন্য বড়দিন পালন করা কতটা সহজ বা কঠিন? বাংলাদেশে যেহেতু মুসলিমরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ এবং এখানে খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীদের সংখ্যা খুবই কম, তাই এদেশে বড়দিন পালন করাটা খুব একটা সহজ নয়।  বড়দিনের ছুটিতে কেক, পিঠা খেয়ে আর নতুন কাপড়চোপড় পড়ে সাধারণত: পরিবারের সাথেই সময় কাটান বাংলাদেশের খ্রিষ্টানরা। বিশেষ এই দিনটিতে সকালে গির্জায় জড়ো হয়ে প্রার্থনা করেন তারা। মূলত: গির্জাতেই একে অপরের সাথে কুশল বিনিময় করার বড় সুযোগটি হয় বাংলাদেশের খ্রিষ্টানদের। পশ্চিমা দেশগুলোতে ক্রিসমাস ডে বা বড়দিন পালনের জন্য বেশ আগেভাগেই শুরু হয়ে যায় নানা তোরজোড়। বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে এখন বাংলাদেশেও আগের তুলনায় বড়দিনের আমেজ বেড়েছে বলেই জানাচ্ছিলেন তিনি।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৮:৫৮ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ২৪, ২০১৫