| দুপুর ২:৪৮ - রবিবার - ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ - ১৪ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

ফুলবাড়ীয়া শিব মন্দিরে ৫০ বছর পর শারদীয় দূর্গাপুজা উদযাপিত

আব্দুস ছাত্তার, ফুলবাড়ীয়া ব্যুরো : ২২ অক্টোবর ২০১৫, বৃহস্পতিবার,

দীর্ঘ ৫০ বছর পর পুটিজানা ইয়ুথ ক্লাবের উদ্যোগে শিব মন্দিরে শারদীয় দূর্গাপুজা উদযাপনের আয়োজন করায় স্থানীয়রা মহাখুশি। মন্দিরটি ময়মনসিংহ জেলার অর্ত্মগত ফুলবাড়ীয়া উপজেলার ২নং পুটিজানা ইউনিয়নের পুটিজানা রায় বাড়ীতে অবসি’ত।
জানা যায়, প্রায় ১৫০ বছর পূর্বে তৎকালীন জমিদাররা শিব মন্দিরটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ঐ সময় মন্দিরের নামে জমি দান করেছিলেন দানবীর কুমেত রায়। সেই সময় অত্যন্ত ঝাকঝমকভাবে সনাতন ধর্মালম্বীদের অনুষ্ঠানাদি পালন হতো এই মন্দিরে। কালের বির্বতনে জমিদাররা চলে যাওয়ার পর মন্দিরটি আস্তে আস্তে তার সৌন্দর্য হারাতে থাকে। কিন্ত মুরব্বীদের মুখে মুখে থেকে যায় এর ইতিহাস। সময় পেলেই বয়জৈষ্ঠরা বর্তমান প্রজন্মের কাছে তুলে ধরেন এই মন্দিরের গল্প-কাহিনী। বর্তমান প্রজন্ম জেগে উঠে এই মন্দিরটি সংরক্ষণ ও এর হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে দিতে। প্রতিষ্ঠা করেন ‘ইয়ুথ ক্লাব’ নামে একটি সংগঠন। চলতি বছর সংগঠনটি আত্ম প্রকাশ করে প্রথম উদ্যোগ নেয় শারদীয় দূর্গাপূজা উদযাপনের।
সংগঠনের নেতা প্রশানত্ম চন্দ্র দে, উজ্জল দে, বাপ্পা চন্দ্রধর ও প্রদীপ চন্দ্র দে জানান, আমরা শিব মন্দিরের হারানো ঐহিত্য ফিরিয়ে আনতে উদ্যোগ নিচ্ছি। এখন থেকে এই ক্লাবের ব্যানারে এখানেই সকল কালচারাল ও ধর্মীয় প্রোগ্রাম বাসত্মবায়ন করতে চাই।
স্থানীয় নারায়ন চন্দ্র দে (৭৮), সুকুমার চন্দ্র দে (৭০) জানান, জমিদার আমলে এখানে ঢাক-ঢোল পিটিয়ে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে ধর্মীয় অনুষ্ঠান হত, যা এখনো আমাদের চোখে ভেসে উঠে। ঐতিহ্যবাহি শিব মন্দিরটি ১৫০ বছরের পুরাতন। যা ২০০৫ সালে পূণ: প্রতিষ্ঠা করা হয়।  ইয়ুথ ক্লাবের সদস্যরা জানান, শিব মন্দির উন্নয়ন ও সংস্কারে সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা পেলে সনাতন ধর্মালম্বীদের ধর্মীয় কাজগুলো সহজেই করতে পারবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৯:০০ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ২২, ২০১৫