| রাত ১০:১২ - বুধবার - ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ১৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

শেরপুরে বাসের ধাক্কায় স্কুলছাত্র নিহতের ঘটনায় শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

শেরপুর প্রতিনিধি:৭ অক্টোবর ২০১৫, বুধবার,
শেরপুরে বাসের ধাক্কায় স্কুলছাত্র নিহতের ঘটনায় দায়ী বাস চালকের দৃষ্টানত্মমূলক শাসিত্ম, ড়্গতিপূরণ প্রদান ও শহরের ভিতর দিয়ে দূরপালস্নার যানবাহন চলাচল বন্ধের দাবিতে শিড়্গার্থীরা মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান করেছে। নিহত ছাত্র মো. আতিকুর রহমানের স্কুল শেরপুর জি.কে.পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিড়্গার্থীদের সংগঠন ‘স্টুডেন্ট ক্যাবিনেট’ এর আহ্বানে আজ ৭ অক্টোবর বুধবার দুপুরে এসব কর্মসূচী পালন করা হয়।
আজ বুধবার বেলা ১১টা থেকে ১২ টা পর্যনত্ম জেলা শহরের রঘুনাথ বাজার থানা মোড়ে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন চলাকালে জি. কে পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মঞ্জুরম্নল ইসলাম, মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি, শেরপুর জেলা শাখার সভাপতি মো. চাঁন মিয়া, স্টুডেন্ট ক্যাবিনেটের প্রধান প্রতিনিধি জিহান বক্তব্য দেন। মানববন্ধন কর্মসূচীতে শেরপুর জেলা শহরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কয়েক হাজার শিড়্গক শিড়্গার্থীরা অংশগ্রহণ করেন।
পরে ক্যাবিনেটের একটি প্রতিনিধি দল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গিয়ে জেলা প্রশাসক ডা. এ. এম. পারভেজ রহিমের নিকট ৫ দফা দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি প্রদান করেন। স্মারকলিপিতে নিহত স্কুল ছাত্র আতিকুর রহমানের বাবা মাকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ প্রদান, শহরের ভিতর দিয়ে দূরপালস্নার যানবাহন চলাচল বন্ধসহ দায়ী বাস চালকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানানো হয়।
এ ঘটনায় শেরপুর সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। গ্রেপ্তার বাস চালক মো. আনোয়ার হোসেন বর্তমানে শেরপুর জেলা কারাগারে আটক রয়েছেন।
উলেস্নখ্য, গত ৫ অক্টোবর সোমবার বিকেলে শেরপুর-জামালপুর সড়কের পশ্চিমশেরী এলাকায় সরকার পরিবহনের একটি দ্রম্নতগামী বাসের ধাক্কায় স্কুলছাত্র মো. আতিকুর রহমান নিহত হয়। সে জেলা শহরের মধ্যশেরী এলাকার দিনমজুর শফিল উদ্দিনের একমাত্র সন্তান এবং শেরপুর জি. কে. পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৫:৪২ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ০৭, ২০১৫