| রাত ১০:৩৬ - বুধবার - ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ১৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

শেরপুরে তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে সন্ত্রাসীদের হামলা:দোকানপাট ও বাড়িঘর ভাংচুর: আহত-২

 
শেরপুর প্রতিনিধি:২২ সেপ্টেম্বর ২০১৫, মঙ্গলবার,

শেরপুরে তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে সন্ত্রাসীদের হামলায় চারটি দোকান ও তিনটি  বাড়ি ভাঙ্গচুর করা হয়েছে। এসময় হামলায় দুইজন আহত হয়েছেন। এঁরা হলেন শেরপুর জেলা শহরের দীঘারপাড় চৌরাবাড়ি এলাকার ফজর আলীর ছেলে আফছার আলী (২৫) ও মোকছেদুর রহমান (৭০)। আফছারকে শেরপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত ২১ সেপ্টেম্বর সোমবার রাতে দীঘারপাড় চৌরাবাড়ি এলাকায় হামলার এঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে শেরপুর সদর থানায় আজ ২২ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার একটি মামলাদায়ের করা হয়েছে। তবে এ ঘটনায় কেউ আটক বা গ্রেপ্তার হয়নি। পুলিশ, এলাকাবাসী ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ক্যারম বোর্ড খেলাকে কেন্দ্র করে গত ২০ সেপ্টেম্বর রোববার রাতে শহরের দীঘারপাড় এলাকার আওয়াল তালুকদারের ছেলে লুৎফর রহমান তালুকদারের সঙ্গে ফজর আলীর ছেলে আফছার আলীর বাগবিতন্ডা হয়। এ ঘটনার জের ধরে গত সোমবার বিকেলে দীঘারপাড় ও দীঘারপাড় চৌরাবাড়ি এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে গত সোমবার রাতে লুৎফর রহমান তালুকদারের নেতৃত্বে প্রায় অর্ধ-শত যুবকলাঠি, ফালা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে দীঘারপাড় চৌরাবাড়ি এলাকার দোকানপাট ও বাড়িঘরে হামলা চালান। হামলায় চৌরাবাড়ি এলাকার চারটি দোকান ও তিনটি বাড়ি ভাঙ্গচুর করা হয়। এসময় হামলাকারীরা দোকানপাট ও বাড়িঘরের মূল্যমান আসবাবপত্র, মালামাল ও নগদ টাকা লুট করে নিয়ে যান। হামলায় আফছার আলী ও মোকছেদুর রহমান আহত হন। সংবাদপেয়ে শেরপুর সদর থানা পুলিশ ঘটনাস’লে গিয়ে পরিসি’তি নিয়ন্ত্রণে আনেন। এসময় হামলাকারীরা পালিয়ে যান। আজ ২২ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিনে ঘটনাস’লে গিয়ে দেখা যায়,হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ দোকান ও ঘরবাড়িগুলো লন্ডভন্ড হয়ে গেছে এবং টিনের চালগুলো ধারালো অস্ত্র দিয়ে কেটে ফেলা হয়েছে। হামলায় এলাকাবাসীর চার লাখ ৭৫ হাজার টাকার সম্পদ বিনষ্ট হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ী মৃত কফিল উদ্দিনের ছেলে মো. হাসেম জানান। শেরপুর সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. হাবিবুর রহমান আজ মঙ্গলবার বিকেলে বলেন, এ ঘটনায় মো. হাসেম বাদী হয়ে লুৎফর রহমান তালুকদারকে প্রধান আসামি করে ২৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও ১০ থেকে ১৫ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। জানতে চাইলে লুৎফর রহমান তালুকদার হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে মুঠোফোনে বলেন, তাঁর চাচা বাদশা তালুকদার শেরপুর পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর। আসন্ন পৌর নির্বাচনে তিনি (বাদশা) পুনরায় নির্বাচনকরবেন। কিন’ দীঘারপাড় চৌরাবাড়ি এলাকার একটি মহল বাদশার জনপ্রিয়তাকে নষ্ট করার লক্ষ্যে এবং সামাজিকভাবে তাঁদের পরিবারকে হেয় প্রতিপন্ন করার উদ্দেশে যড়যন্ত্রমূলকভাবে তাঁকে (লুৎফর) এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত করেছেন।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৯:৩৬ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৫