| বিকাল ৪:২৪ - শুক্রবার - ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ - ১২ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

ঈশ্বরগঞ্জ কলেজের নিয়োগ নিয়ে আ’লীগের দু’গ্রুপে ধাওয়া-পাল্টা-ধাওয়া পুলিশের গুলি আহত ১৫

 

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি-১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৫,  রোববার,
ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের শিক্ষক নিয়োগকে কেন্দ্র করে উপজেলা আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা-ধাওয়া হয়েছে। এসময় লাঠিশোঠা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে দু’গ্রুপের বিক্ষোভ চলাকালে পুলিশের ফাঁকা গুলি ও লাঠিচার্জে আহত হয় ৪ ছাত্রলীগ কর্মীসহ ১৫ জন নেতাকর্মী। আজ রোববার ঈশ্বরগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে অনার্সের তিনটি বিভাগে শিক্ষক নিয়োগকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটে। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিসি’তি নিয়ন্ত্রনে আনতে সদরের বিভিন্ন এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
দলীয় ও পুলিশ সূত্রে জানাযায়, গত ২২ আগস্ট ঈশ্বরগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে অনার্সের বাংলা, হিসাব বিজ্ঞান ও সমাজকর্ম বিভাগের জন্য ১৫ জন শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার জন্য প্রস’তি নেয় কলেজ কর্তৃপক্ষ। বিষয়টি নিয়ে সাবেক এমপি আব্দুছ ছাত্তরের বিরুদ্ধে নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ তুলে ওই দিন কলেজের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করে। সেই সাথে কলেজের পরিচালনা কমিটির সদস্য রফিকুল ইসলাম বুলবুল সহ কয়েকজন সদস্য নিয়োগ কমিটির কাছে পরীক্ষাটি স্থগিতের অনুরোধ জানালে কর্তৃপক্ষ নিয়োগ পরীক্ষাটি স্থগিত করেন।
চলতি মাসের মধ্যে শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন না করা হলে অনার্সের তিনটি বিভাগের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাবে। তাই কলেজ কর্তৃপক্ষ গত ৬ সেপ্টেম্বর প্রার্থীদের পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার জন্য চিঠি পাঠান। আজ রোববার পরীক্ষার দিন নির্ধারণ করা হয়। ওই অবস্থায় ১০ সেপ্টেম্বর কলেজের পরিচালনা কমিটির সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম বুলবুল নিয়োগ কমিটির বিরুদ্ধে নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ এনে ৬ সেপ্টেম্বরের ইস্যুকৃত পত্রে নিয়োগ পরীক্ষা ও নিয়োগ অনুমোদনের ওপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে ময়মনসিংহ আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত নিয়োগ কমিটিকে নোটিশ জারি করে নোটিশ প্রাপ্তির ১০ দিনের মধ্যে ওই দরখাস্তের জবাব দিতে নিদের্শ দেন। আদালতের নোটিশ উপেক্ষা করে নিয়োগ পরীক্ষা বহাল থাকলে কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় শিল্প বিষয়ক সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুছ ছাত্তার ও কলেজ পরিচালনা কমিটির সদস্য উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম বুলবুল গ্রম্নপের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। এ পরিসি’তিতে কলেজ কর্তৃপক্ষ নিয়োগটি পুন:রায় স্থগিত করে। বিষয়টি নিয়ে সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুছ ছাত্তারের সমর্থক নেতাকর্মীরা প্রকাশ্যে লাঠিশোটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল শুরম্ন করে। মিছিলটি ঈশ্বরগঞ্জ বাজার সমিতির সামনে পৌছলে বিপরীত দিক থেকে রফিকুল ইসলাম বুলবুলের সমর্থক নেতাকর্মীরা লাঠিশোঠা নিয়ে প্রতিরোধ করতে চাইলে উদ্ভুত পরিসি’তি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৫ রাউন্ড গুলি ও লাঠিচার্জ করে। এ সময় পৌর ছাত্রলীগের রিয়াদ, মামুন, আব্দুল মতিন ও সুজনসহ আহত হন ১৫ জন। আহতদের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।
কলেজ পরিচালনা কমিটির সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম বুলবুল বলেন, ১৫ জন শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার জন্য কলেজের সভাপতি আব্দুছ ছাত্তার প্রার্থীদের কাছ থেকে টাকা নেন। তিনি বলেন, টাকার বিনিময়ে ইতোপূর্বে কলেজে অযোগ্য শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। যার কারণে তারা টাকা না নিয়ে যোগ্য শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার পক্ষে ছিলেন। কিন’ সভাপতি তা না করায় টাকার বিনিময়ে অযোগ্য শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করায় তা বন্ধের জন্য মামলা করেছেন। আদালত কারণ দর্শানোর নোটিশ উপেক্ষা করে নিয়োগ পরীক্ষা বহাল থাকলে উদ্ভুদ্ধ পরিসি’তির সৃষ্টি হয়েছে।
কলেজের অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম খান বলেন, বিষয়টি নিয়ে আদালতে মামলা হওয়ায় পুন:রায় নিয়োগ পরীক্ষব স্থগিত করা হয়েছে।
কলেজের পরিচালনা কমিটির সভাপতি সাবেক এমপি আব্দুছ ছাত্তারের মোবাইল ফোনে বার বার চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
ঈশ্বরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ বোরহান উদ্দিন জানান, প্রকাশ্যে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বিড়্গোভ করে দু’গ্রুপ মুখোমুখি হলে ৫ রাউন্ড ফাকা গুলি ছোড়া হয়। পরিসি’তি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।##

সর্বশেষ আপডেটঃ ৭:০৬ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৫