| রাত ৪:৫৭ - শুক্রবার - ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ৩রা রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

মির্জা ফখরুল মুক্ত

অনলাইন ডেস্ক, ১৪ জুলাই ২০১৫, মঙ্গলবার:

বহু নাটকীয়তার পর অবশেষে মুক্তি পেয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সন্ধ্যা ৭টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (বিএসএমএমইউ) থেকে মুক্তি পান তিনি।  এসময় হাসপাতালে উপস্থিত সাংবাদিকদের মির্জা আলমগীর বলেন, আমি আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করছি। কিছুদিনের জন্য হলেও আমি মুক্ত হয়েছি। আমি চিকিৎসার জন্য খুব তাড়াতাড়ি দেশের বাইরে যাবো। সমগ্র দেশবাসীর কাছে আমি দোয়া চাইছি যেন আরোগ্য লাভ করে দেশের মানুষের জন্য কাজ করতে পারি। গণমাধ্যম কর্মীদের ধন্যবাদ জানিয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, কারান্তরীণ অবস্থায় আমার অসুস্থতার খবর অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে জাতির সামনে তুলে ধরেছেন। সেজন্য আপনাদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। তিনি বলেন, আমি অত্যন্ত অসুস্থ। গত ছয় মাসে আমার প্রায় ১২ কেজি ওজন  কমে গেছে। আমার আর্টারিতে যে ব্লক রয়েছে সেটার সমস্যা আরও বেড়েছে। আইবিএস-এর সমস্যাটা বেড়েছে। এর জন্য আমার স্ত্রী ইতিমধ্যে সিঙ্গাপুরে যোগাযোগ করেছেন যেখানে আমি আগে চিকিৎসা করিয়েছিলাম। এছাড়া আমেরিকায়ও যোগাযোগ করেছেন। যে কোন একটি দেশে চিকিৎসার জন্য যাবো। রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অসুস্থ মাকে দেখতে যাওয়ার কথা জানিয়ে মির্জা আলমগীর বলেন, আমার মা ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। সেখানে আমার মাকে দেখতে যাবো এবং একইসঙ্গে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ প্রফেসর মোমিনুজ্জামানের কাছে পরামর্শ করবো। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কেবিন ব্লক (৬১৯ নং রুম) থেকে একটি হুইল চেয়ারে করে এম্বুলেন্সে উঠেন। এসময় শতাধিক বিএনপি ও ছাত্রদল নেতাকর্মী হাসপাতালের গেটে তাকে স্বাগত জানান। সেখান থেকে মুক্তি পেয়ে ওই এম্বুলেন্সে করে সরাসরি ইউনাইটেড হাসপাতালে যান মির্জা আলমগীর। এসময় তার স্ত্রী রাহাত আরা বেগম সঙ্গে ছিলেন।   উল্লেখ্য, গত ৬ই জানুয়ারি জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে থেকে গ্রেপ্তার করা হয় মির্জা আলমগীরকে। এরপর কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়লে আদালতের নির্দেশে গত ১৩ই জুন বঙ্গবন্ধু  শেখ মুজিব মেডিকেলে হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১০:০৭ অপরাহ্ণ | জুলাই ১৪, ২০১৫