| ভোর ৫:০৬ - শুক্রবার - ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ৩রা রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

ঈশ্বরগঞ্জের আঠারবাড়িতে মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেপ্তারে মানববন্ধন

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি-
ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের আঠারবাড়ী ইউনিয়নের মৃগালী গ্রামে মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেপ্তারের দাবীতে মানববন্ধন করেছেন এলাকাবাসী। ঈশ্বরগঞ্জ-আঠারবাড়ী সড়কের মৃগালি নামক স’ানে গতকাল শুক্রবার সকালে ওই মানববন্ধন করা হয়।
জানা যায়, জোরপূর্বক জমি দখল ও বিভিন্ন মামলায় এলাকার লোকজনকে হয়রানি করায় মৃগালী গ্রামের শহিদ উলস্নাহ ও তার স্ত্রীর বিরম্নদ্ধে দৃষ্টানত্মমূলক শাসিত্ম এবং তাদের ২ ছেলে মাদক সম্রাট রম্নবেল ও রাসেলকে অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবীতে গতকাল শুক্রবার সকালে মৃগালী নামক স’ানে মানববন্ধন করেছেন এলাকাবাসী।
এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ৩জুলাই রাতে উপজেলার সরিষা ইউনিয়নের গুইলাকান্দা গ্রামের আব্দুল জব্বারের ছেলে আনোয়ার হোসেন (৩৫) কে ঈশ্বরগঞ্জ-আঠারবাড়ী সড়কের মৃগালী নামক স’ানে গলা কেটে হত্যা করে মোটরসাইকেল ছিনতাই করে নিয়ে যায়। ওই দিন পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে হত্যা মামলার প্রধান সন্দেহভাজন হিসেবে আঠারবাড়ি ইউনিয়নের মৃগালী গ্রামের এস আই শহিদুলস্নাহর ছেলে রাসেলকে নিজ বাড়ি থেকে আটক করে। রাসেল ৭ মাস পর জেল থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে আবারো এলাকায় মাদক ও নারী ব্যবসা সহ বিভিন্ন অপকর্ম করে আসছে বলে জানিয়েছেন এলাকার আব্দুল জব্বার. শরাফত আলী। এলাকাবাসী আরো জানায়, পিতার চাকুরীর সুবাদে এলাকায় প্রভাব খাটিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা সহ আশপাশের উপজেলা গুলোতে মোটরসাইকেল, অটোরিক্‌শা ছিনতাই, মাদক, পতিতা ব্যবসা সহ এলাকায় চাঁদাবাজি করে আসছে। ঈশ্বরগঞ্জ সহ আশপাশের উপজেলা গুলোতে তার নামে রয়েছে একাধিক মামলা ও জিডি। ২০১১ সালে কেন্দুয়া থানার বাশাটি গ্রামের দুলালের ছেলে পলাশকে হত্যার চেষ্টা করে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের সময় জনতার হাতে ধরা পড়ে রাসেল। ২০১৩ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর রাতে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে ইয়াবা ও পতিতা সহ পুলিশের হাতে আটক হয়। ৫ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে নান্দাইল উপজেলার শেরপুর গ্রামের আবদুল মন্নাছের পুত্র অটোরিকশা চালক জুয়েল রানাকে হত্যার চেষ্টা করে অটোরিকশা ছিনতাই করে নিয়ে যায়। নান্দাইল থানার মামলা নং-২৪ তাং-১৮/০১/১৪ ইং। এদিকে এস আই শহীদুলস্নাহ জায়গাজমি বেদখল করে ভিটেমাটি ছাড়া করেছে তারই আপন বোন রোকেয়া বেগম, ভাই আব্দুল জব্বার সহ একই গ্রামের মর্তুজা বেগম, আব্দুল জলিলকে, জানিয়েছেন ওই এলাকার যুবলীগ নেতা কাঞ্চন।
আঠারবাড়ি তদনত্ম কেন্দ্রের ইনচার্জ এস আই মামুন জানান, অভিযোগগুলো তদনত্ম করে দেখা হচ্ছে। তদনত্ম শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস’া গ্রহণ করা হবে। ###

সর্বশেষ আপডেটঃ ৯:০৪ অপরাহ্ণ | জুলাই ১০, ২০১৫