| রাত ১১:২৪ - বুধবার - ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ১৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

দুই ম্যাচ হারেই সব শেষ হয়ে যায় না:তামিম

অনলাইন ডেস্ক, ৯ জুলাই ২০১৫, বৃহস্পতিবার:

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলতে হলে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারাতে হবে ওয়ানডে সিরিজে অন্তত একটি ম্যাচ। তা না করতে পারলে বাংলাদেশকে তাকিয়ে থাকতে হবে শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তান সিরিজের দিকে। যদি পাকিস্তান সিরিজ জিতে যায় তাহলে বাংলাদেশের আর কোন সুযোগই থাকছে না। আর পাকিস্তান সিরিজ জিততে না পারলে বাংলাদেশের সুযোগ থাকবে র‌্যাঙ্কিংয়ে ৮ নম্বরে থেকে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলার। তবে সহজ সমীকরণ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে অন্তত একটি ওয়ানডে জয়। কাল মাঠে গড়াচ্ছে সিরিজের প্রথম ম্যাচ। এরই মধ্যে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ হেরে মানসিকভাবে পিছিয়ে আছে টাইগাররা। তাই ওয়ানডে সিরিজে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে ঘুরে দাঁড়ানো বড় চ্যালেঞ্জ। আর সেই চ্যালেঞ্জে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সমীকরণ যোগ করেছে আরও উত্তাপ। তাই গতকাল টি- টোয়েন্টি সিরিজের পরদিনও কোন বিশ্রামের সুযোগ পায়নি মাশরাফি বাহিনী। অনুশীলন করেছে প্রোটিয়ারাও। দুপুর ৩টা থেকে অনুশীলন শুরু করে বাংলাদেশ দল। ঠিক সেই সময় শুরু হয় প্রবল বৃষ্টি। তাই ইনডোরেই সময় কাটে তামিম, মুশফিকদের। অবশ্য অনুশীলনের আগে জাতীয় দলের স্পন্সর রবি’র হয়ে শুটিংও করেছেন টাইগাররা। অনুশীলন শুরুর আগে জাতীয় দলের ওপেনার তামিম ইকবাল দলের লক্ষ্য নিয়ে কথা বলেছেন সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে। সেই কথোপকথনের মূল অংশ তুলে ধরা হলো।
ওয়ানডেতে দল কতটুকু আত্মবিশ্বাসী
আমার কাছে মনে হয় আমরা অনেক আত্মবিশ্বাসী দল ওয়ানডেতে। বেশ কয়েকটা সিরিজ আমরা ভাল খেলছি। টেস্ট আর টি-২০ নিয়ে যে কথাটা বলা হয় সেটা ঠিক না। যেহেতু আমরা ভাল খেলছি আমি শিউর আমরা অনেক আত্মবিশ্বাসী থাকবো।
টি-২০ সিরিজ হারের কোন প্রভাব থাকবে কি?
যে কোন সিরিজ হার দিয়ে শুরু ভাল জিনিস না। তারপরও দুটো ম্যাচ আমরা যেভাবে খেলেছি তারচেয়েও বেটার খেলতে পারতাম। তারপরও আমরা আশাবাদী কারণ, দুইটা হারের কারণেই যদি সবকিছু শেষ হয়ে যায় তাহলে তো হবে না। আমরা সামনের দিকে তাকিয়ে আছি।
ওয়ানডের নতুন নিয়ম জানেন কি?
ওয়ানডের নতুন নিয়ম নিয়ে আমরা কাজ করার তেমন সময় পাইনি। মানিয়ে নিতে দুইটা তিনটা ম্যাচ সময় লাগবেই।
ভারত-পাকিস্তানের চেয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা বড় চ্যালেঞ্জ কি না?
ভারত-পাকিস্তান কিন্তু উপমহাদেশে শক্তিশালী দল। কোন সন্দেহ নেই দক্ষিণ আফ্রিকা খুব প্রফেশনাল সাইড। এই কারণেই তারা র‌্যাঙ্কিংয়ে ১-২তে আছে। ওদের বোলিং অ্যাটাকও ভাল। ব্যাটসম্যানও ভাল। আসলে পাকিস্তান ভারতকে হারাতে যে পরিমাণ কষ্ট করতে হয়েছে, দ. আফ্রিকার বিপক্ষে জয় চাইলে আমাদের তেমন কষ্টই করতে হবে। এদের বিপক্ষে বাড়তি কিছু করতে হবে, এমনও না।
ডি ভিলিয়ার্সের ওয়ানডে দলে না থাকা সুবিধা কিনা?
ডি ভিলিয়ার্সের মতো প্লেয়ার যদি প্রতিপক্ষ একাদশে না থাকে, এটা বাংলাদেশ বা অস্ট্রেলিয়া যে কোন টিমের জন্যই প্লাস পয়েন্ট। কারণ ও এমন প্লেয়ার যে, একাই খেলাটা শেষ করে দিতে পারে। অনেক সময় এমনও হয় ধরেন ওকে ফোকাস করতে গিয়ে অন্যকে ফোকাস করা হয় না। এই কারণে অন্যরা একটু বেশি ভাল করে ফেলে। ওই জিনিসটা অন্ততঃ হবে না। এই জিনিসটা অবশ্যই ইতিবাচক।
অনুশীলনের আগে রবির বিজ্ঞাপন কেন?
এটা ঠিক যে রবি’র বিজ্ঞপনটা সিরিজের পরে হলে অবশ্যই ভাল হতো। বোর্ড থেকে যদি আমাদেরকে বলা হয় করতে, আমি নিশ্চিত বোর্ড আমাদের নিয়ে ভাল কিছুই চিন্তা করে। উনারা যদি কোন কিছু করতে বলে সেটাতো আমরা না করতে পারবো না। আরও একটা ব্যাপার হলো, বাংলাদেশের কোন কোম্পানি এই প্রথম এতো বড় স্পন্সরশিপ করছে। ওদের একটা দাবি থাকে। যেহেতু আজকে অনুশীলনে ব্যাঘাত ঘটছে না সেক্ষেত্রে সবকিছু ঠিক আছে। সত্যি কথা শুটিং আসলে ২৫ মিনিটের বেশি হয় নি।
সৌম্যর সঙ্গে ওপেনিং জুটি কেমন লাগছে?
আমি আমার খেলাটা এনজয় করছি। কারণ দুই পাশ থেকেই যদি রান তাড়াতাড়ি আসে, তাহলে বোলারদের কাজটা কঠিন হয়ে যায়। ক্রি েকট এমন জিনিস, হয়তো একদিন আমার খুব ভাল টাইমিং হবে, আরেকদিন আরেকজনের হবে। এভাবেই জুটি হয়। শেষ টি-টোয়েন্টিতে ও (সৌম্য) রান তুলছিল, ওর কারণেই ৫ ওভারে ৪৬ ছিলাম। একটা খুব ভাল জুটি। কাল হয়তো অন্যরকম হবে। দুই পাশ থেকেই আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেললে এই সুবিধাটা পাওয়া যায়। সৌম্য যেভাবে ব্যাটিং করে, সেটা আমি খুব পছন্দ করি।
হঠাৎ পারফরম্যান্সে ছন্দপতন?
আমার কাছে মনে হয়েছে ব্যাটিং করেই প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি জেতা উচিত ছিল। উইকেট যতোই ভাল বা যতোই খারাপ হোক না কেন আমাদের ১৪০ অন্তত চেজ করা উচিত ছিল। দ্বিতীয় ম্যাচেও আমরা শুরুটা ভাল করেছি। ওই ম্যাচেও আমরা আরও কাছাকাছি যেতে পারতাম। গত এক বছর ধরে বাংলাদেশ টিম খুব ভাল ব্যাটিং করেছে। দুই ম্যাচের কারণে যে আমাদের আত্মবিশ্বাস ধসে যাবে, তা আমি বিশ্বাস করি না। সামনে ওয়ানডে সিরিজ আসছে, এখানে আমাদের খুব ভাল খেলতে হবে। ওদের ব্যাটিং ও বোলিং লাইন উভয়টাই খুব শক্তিশালী।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১:০৮ অপরাহ্ণ | জুলাই ০৯, ২০১৫