| সকাল ৭:০৬ - বৃহস্পতিবার - ১৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ৩রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ১৯শে মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

আবারও নির্বাচন বয়কট করলে বিএনপির অস্তিত্ব থাকবে না: সৈয়দ আশরাফ

সিম্মী আহাম্মেদ, কিশোরগঞ্জ ●
আবারও নির্বাচন বয়কট করলে বাংলাদেশে বিএনপির অসিত্মত্ব থাকবে না বলে মনত্মব্য করেছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তিনি বলেছেন, নির্বাচনে অংশগ্রহণ করাটাই গণতন্ত্রের শুরম্ন। বেগম খালেদা জিয়া এবার নির্বাচনে অংশ করলেন না, তাকে তো কেউ বাধা দেয় নি। কোন ড়্গেত্রেই নির্বাচন বয়কট করা সঠিক সিদ্ধানত্ম নয়। গতকাল বুধবার দুপুরে কিশোরগঞ্জ সার্কিট হাউজ মিলনায়তনে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার সকল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে নব-নির্বাচিত নেতৃবৃন্দের পরিচিতি সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সৈয়দ আশরাফ এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, নির্বাচন বয়কট গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস’ার অংশ নয়। নির্বাচন বয়কট করলে কিছু আসে যায় না। যারা নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে না, তারাই ড়্গতিগ্রস’ হয়। একমাত্র মুক্তিযুদ্ধের সময় নির্বাচন ছাড়া আওয়ামী লীগ কোন নির্বাচনই বয়কট করেনি। এর আগে ৫৪ সালের নির্বাচন, বুনিয়াদী গণতন্ত্রের নির্বাচন, ৬২ এবং ৬৮-র নির্বাচনেও আওয়ামী লীগ অংশ নিয়েছিল। তখন বঙ্গবন্ধুকে অনেকেই বলেছিলেন, আপনি কেন এই নির্বাচনে অংশ নিলেন? বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, নির্বাচন শুধু জয়লাভ করার জন্য নয়। আমরা নির্বাচনে অংশ নিয়েছি তার কারণ হল জনগণের কাছে পৌঁছানোর জন্য।
আগামী নির্বাচন বর্তমান সংবিধানের অধীনে হবে উলেস্নখ করে স’ানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, নতুন কোনো সংবিধানের কোনো সম্ভাবনা নেই। তিনি বলেন, চীন এক দলীয় শাসনের অধীনে ব্যাপক উন্নতি করেছে। আগামী কয়েক দশকে তারা হয়তো পৃথিবীর সব দেশকে ছাড়িয়ে যাবে। তবে তাদের যে পলিটিক্যাল সিস্টেম তা গণতান্ত্রিক নয়। তবে দেশের গণতন্ত্রকে এগিয়ে নেওয়াসহ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখব, এটা জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশন।
কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আতাউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত পরিচিতি সভায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফ আরো বলেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা নিজেদের আখের গোছানোর জন্য রাজনীতি করি না। দেশ ও মানুষের কল্যাণে আওয়ামী লীগ রাজনীতি করে। বঙ্গবন্ধুর কর্মী হিসেবে, জননেত্রী শেখ হাসিনার কর্মী হিসেবে আমরা গর্বিত।
এতে জেলা পরিষদের প্রশাসক অ্যাডভোকেট জিলস্নুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ আফজল, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শরীফ সাদীসহ দলের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপসি’ত ছিলেন।
এর আগে সকালে সৈয়দ আশরাফ যশোদল ইউনিয়নের বীরদামপাড়া গ্রামের বাড়ি পরিদর্শনের উদ্দেশ্যে বের হন। বেলা ১১টার দিকে সেখানে পৌঁছে পারিবারিক কবরস’ানে সদ্যপ্রয়াত ফুফু সৈয়দা সজেতুন নেছার কবর জিয়ারত, নবনির্মিত মসজিদ পরিদর্শন ও শাহ সৈয়দ গাওহর আলীর মাজার জিয়ারত করেন। সেখান থেকে বেলা পৌনে ১২টার দিকে তিনি কিশোরগঞ্জের বাসভবনের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে সাড়ে ১২টার দিকে বাসায় পৌঁছান। পরে বেলা ২টার দিকে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার সকল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে নব-নির্বাচিত নেতৃবৃন্দের পরিচিতি সভায় যোগ দিতে সৈয়দ আশরাফ সার্কিট হাউজে যান। সেখান থেকে তিনি স’ানীয় শিল্পকলা একাডেমিতে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে জেলার হোসেনপুরে স’ানীয় আওয়ামী লীগের ইফতার পার্টিতে যোগ দেন।
সফরের প্রথম দিন মঙ্গলবার বিকালে সৈয়দ আশরাফ মন্ত্রীত্ব থেকে তাকে অব্যাহতির বিষয়টি গুজব বলে সংবাদকর্মীদের জানালে গতকাল বুধবার এনিয়ে তিনি কোন কথা বলেননি। সাংবাদিকরা মন্ত্রীপরিষদের রদবদলের গুজব সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তিনি তা এড়িয়ে যান। সাংবাদিকরা তাকে পদত্যাগের গুঞ্জনের ব্যাপারে জানতে চাইলেও মুখ খুলেননি তিনি।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১১:১৭ অপরাহ্ণ | জুলাই ০৮, ২০১৫