| রাত ৯:৩০ - শনিবার - ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ৮ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

জিম্মিদশা থেকে জেলা আওয়ামীলীগকে মুক্ত করতে হবে-এডভোকেট আলহাজ্ব মো: জহিরুল হক খোকা

স্টাফ রিপোটার, ৪ জুলাই ২০১৫, শনিবার:

ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীদের স্মৃতিচারন দোয়া ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্য জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদ প্রশাসক এডভোকেট আলহাজ্ব মো: জহিরুল হক খোকা বলেছেন, ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগ বর্তমানে একটি গুষ্ঠির কাছে জিম্মি হয়ে পরেছে। জিম্মিদশা থেকে জেলা আওয়ামীলীগকে মুক্ত করতে হবে। যাতে দলের ত্যাগি ও অবহেলিত নেতাকর্মীরা কাজ করার সুযোগ পায়। তিনি বলেন, আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে জেলা আওয়ামীলীগ অনুষ্ঠান করতে পারেনা। এর চাইতে লজ্জার বিষয় আর কি হতে পারে। ৪জুলাই অনুভব কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত লড়াই সংগ্রামের সাথীদের নিয়ে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীদের স্মৃতিচারন দোয়া ও ইফতার মাহফিল ও সাবেক ছাত্রনেতাদের মিলন মেলায় সভাপতিত্ব করেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক, সাবেক সভাপতি, কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক আনত্মর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক, আমোকসু‘র সাবেক ভিপি ও জেলা আওয়ামীলীগ সদস্য এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল। অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের স্বাগত জানান ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র ও আওয়ামীলীগনেতা মো: ইকরামুল হক টিটু। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জেলা নাগরিক আন্দোলনের সভাপতি এডভোকেট আনিসুর রহমান খান, এফবিসিসিআই এর পরিচালক আলহাজ্ব মো: আমিনুল হক শামীম, জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক এহতেশামুল আলম, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক ও হালুয়াঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান ফারম্নক আহমেদ খান, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক মো: ফজলুর রহমান, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক অধ্যড়্গ আব্দুর রফিক, কোষাধ্যড়্গ মো: ফারম্নক হোসেন, শহর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট সাদেক খান মিল্কী টজু, কোতুয়ালী আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এমদাদুল হক মন্ডল, জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি প্রদীপ ভৌমিক, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এডভোকেট মাহবুবুল আলম ফরিদ, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি এডভোকেট এবিএম নুরম্নজ্জামান খোকন, সাবেক সাধারন সম্পাদক মো: আনোয়ারম্নল হক রিপন, জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি ও ময়মনসিংহ পৌরসভার প্যানেল মেয়র মো: নজরম্নল ইসলাম, সাবেক জেলা ছাত্রলীগ নেতা এডভোকেট মো: আব্দুল গফুর, জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি এডভোকেট পীযুষ কানিত্ম সরকার, জেলা যুবলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক শাহ শওকত উসমান লিটন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবু সাইদ দীন ইসলাম ফখরম্নল, আমোকসু‘র সাবেক জিএস অধ্যাপক মফিজুন নুর খোকা, মুমিনুন্নিসা সরকারী মহিলা কলেজ ছাত্রী সংসদের সাবেক ভিপি ও ভালুকা উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মনিরা সুলতানা মনি, নাসিরাবাদ কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি আখেরম্নল ইসলাম সোহাগ, বানিজ্যিক কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক জিএস মাসুদ রানা আহমেদ, বানিজ্যিক কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক জিএস হুমায়ুন কবীর হিমেল, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি তাজ উদ্দিন আহমেদ রানা, জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মো: রাকিবুল ইসলাম রকিব প্রমুখ। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বাসত্মবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সকল পদড়্গেপ সফল করার দীপ্ত শপথ গ্রহন করার প্রত্যয় জানিয়ে অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এম এ কুদ্দুছ, আহমদ আলী আকন্দ, আমোকসু‘র সাবেক জিএস কাজী আজাদ জাহান শামীম ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক শওকত জাহান মুকুল। জেলা নাগরিক আন্দোলনের সভাপতি এডভোকেট আনিসুর রহমান খান বলেন, স্বাধীনতাযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী ছাত্র সংগঠনটির কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে টেন্ডারবাজ, ভুমিদস্য ও অশ্রবাজদের হাত থেকে আওয়ামীলীগকে মুক্ত করতে হবে। দুর্নীতিবাজ নেতাদের কাছ থেকে দুরে থাকতে হবে। জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক এহতেশামুল আলম বলেন, আজকের এই ইফতার পার্টির মাধ্যমে সব ভেদাভেদ ভুলে আমরা যে একাত্বতা প্রকাশ করেছি তা যেন চিরদিন অটুট থাকে। তা না হলে আমরা হারিয়ে যাব। জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক ও হালুয়াঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান ফারম্নক আহমেদ খান বলেন, আমরা স্বাধীন ভাবে দলের কাজ করতে চাই। কারো কাছে জিম্মি হয়ে থাকতে চাই না। জেলা আওয়ামীলীগকে এহেন অবস্থা থেকে মুক্ত করতে প্রাক্তন ছাত্রনেতাদের ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ ভাবে এগিয়ে আসা উচিত। শহর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট সাদেক খান মিল্কী টজু বলেন, আমরা প্রাক্তন ছাত্রনেতারা যদি ঐক্যবদ্ধ ভাবে দলের চক্রানত্মকারীদের বিরম্নদ্ধে রম্নখে দাড়াই তা হলে দলীয একনায়কতন্ত্রের অবসান হবে। দলে গনতান্ত্রিক চর্চা থাকলে দল শক্তিশালী হবে। তিনি আরো বলেন, আসুন আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ হই। দলের সাধারন কর্মীদের প্রাধান্য দিয়ে দলকে শক্তিশালী করি। তিনি উপস্থিত সবার প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, আজকের মত আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকব। আওয়ামীলীগ নেতা ও ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র মো: ইকরামুল হক টিটু বলেন, আমি মনে করি, আওয়ামীলীগ যদি ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করে তাহলে কেউ আওয়ামীলীগকে পরাজিত করতে পারবেনা। আওয়ামীলীগ সমর্থিত মেয়র হিসাবে আমি আওয়ামীলীগের সমসত্ম নেতাকর্মীকে আমার পাশে থাকতে চাই। আপনারা আমকে দয়া করে সে সুযোগ দিন। যাতে আমরা সবাই দেশের উন্নয়ন করে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে পারি। আমি ময়মনসিংহের পৌরবাসীকে হিংসাবিদ্রেস ভুলে এক হয়ে কাজ করার আহবান জানাই। সম্মানিত অতিথি হিসাবে এফবিসিসিআই এর পরিচালক আলহাজ্ব আমিনুল হক শামীম বলেন, আমি সক্রিয় ভাবে রাজণীতিতে যুক্ত নই। তারপরও আমি মনে করি দুর্নীতিবাজ নেতা ও কর্মীদের কাছ থেকে আওয়ামীলীগকে দুরে রাখতে হবে। তা না হলে স্বাধীনতার নেতৃত্বদানকারী আওয়ামীলীগ ক্ষতিগ্রস্থ হবে। আমি বিশ্বাস করি আপনারা আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে সৎ, নিষ্ঠাবান ও ত্যাগীকর্মীদের নেতৃত্ব দানের সুযোগ করে দিবেন। তিনি বলেন, যারা রাজণীতিকে কুলষিত করতে চায় তাদের প্রতিহত করম্নন। আপনারা কুলষিত মুক্ত আওয়ামীলীগ গড়ে তুলুন। তাহলেই জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সমৃদ্ধশালী দেশ হিসাবে গড়ে উঠবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১০:৫৯ অপরাহ্ণ | জুলাই ০৪, ২০১৫