| সকাল ৭:৫৪ - রবিবার - ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ - ১৪ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

ঈদে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট ৯ই জুলাই থেকে

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট ৯ই জুলাই থেকে বিক্রি শুরু হবে। চলবে ১৩ই জুলাই পর্যন্ত। একজন সর্বোচ্চ চারটি টিকিট কিনতে পারবেন। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে টিকিট বিক্রি শুরু হয়ে চলবে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। গতকাল রোববার রেলভবনে সংবাদ সম্মেলনে রেলপথমন্ত্রী মুজিবুল হক এই তথ্য জানান। তিনি আরও জানান, চাঁদ দেখা সাপেক্ষ আগামী ২০শে জুলাই ঈদুল-ফিতর উদযাপিত হবে বাংলাদেশে। ঘোষিত তারিখ অনুয়ায়ী ট্রেনের ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে যাওয়ার জন্য ৯ই জুলাই দেয়া হবে ১৩ জুলাইর টিকিট, ১০ই জুলাই ১৪ তারিখের, ১১ই জুলাই ১৫ তারিখের, ১২ই জুলাই ১৬ তারিখের এবং ১৩ই জুলাই ১৭ তারিখের টিকিট বিক্রি হবে। ঢাকার কমলাপুর ও চট্টগ্রাম স্টেশন থেকে পাওয়া যাবে এসব টিকিট। ঈদের পর ফেরার জন্য ২০শে জুলাইয়ের আগাম টিকিট পাওয়া যাবে ১৬ই জুলাই, ২১শে জুলাইয়ের টিকিট পাওয়া যাবে ১৭ই জুলাই, ২২/২৩ জুলাইয়ের আগাম টিকিট পাওয়া যাবে ১৯শে জুলাই, ২৪শে জুলাইয়ের আগাম টিকিট পাওয়া যাবে ২০শে জুলাই। এ ছাড়া ঈদের পরে রাজশাহী, খুলনা, রংপুর, দিনাজপুর, লালমনিরহাট স্টেশন থেকে বিশেষ ব্যবস্থায় টিকিট বিক্রি হবে বলে জানান রেলমন্ত্রী। ঈদ উপলক্ষে পাহাড়তলি ওয়ার্কশপ থেকে ৮৬টি ও সৈয়দপুর ওয়ার্কশপ থেকে ৮৩টি যাত্রীবাহী কোচ শপ আউট-টার্ন হবে। কারখানায় মেরামত করে অতিরিক্ত ২৫টি ইঞ্জিন সরবরাহ করা হবে মূল বহরে। মন্ত্রী জানান, কালোবাজারি ঠেকাতে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।  ঢাকা, ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট, বিমানবন্দর, জয়দেবপুর, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ, সিলেট, রাজশাহী, খুলনাসহ সকল বড় বড় স্টেশনে জিআরপি, আরএনবি ও স্থানীয় পুলিশ বিজিবি এবং র‌্যাব এর সহযোগিতায় টিকিট কালোবাজারি প্রতিরোধে সার্বক্ষণিক প্রহরার ব্যবস্থা করা হবে। এ ছাড়া জেলা প্রশাসকদের সহায়তায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে। রেল সূত্রে জানা গেছে, স্বাভাবিকভাবে প্রতিদিন বাংলাদেশ রেলওয়েতে প্রায় ১ লাখ ৮০ হাজার যাত্রী পরিবহন করা হয়ে থাকে। কিন্তু পবিত্র ঈদুল-ফিতর উপলক্ষে প্রতিদিন প্রায় ২ লাখ ৫০ হাজার যাত্রী পরিবহনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৭:৫৪ পূর্বাহ্ণ | জুন ২২, ২০১৫