| দুপুর ১২:৫৩ - শুক্রবার - ১২ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ১৩ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের ৪৩০০ শরণার্থীকে নাগরিকত্ব দিয়েছে ভারত সরকার

অনলাইন ডেস্ক | ১৫ জুন ২০১৫, সোমবার:

এক বছরে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের ৪৩০০ হিন্দু ও শিখ শরণার্থীকে নাগরিকত্ব দিয়েছে ভারত সরকার। আগের সরকারের আমলের তুলনায় এ সংখ্যা চারগুণ বেশি। এ খবর দিয়েছে ভারতীয় পত্রিকা নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস। ভারতের গত জাতীয় নির্বাচনের সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছিলেন, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান থেকে ভারতে যাওয়া হিন্দু শরণার্থীদের নাগরিক হিসেবে গণ্য করা হবে। এছাড়া দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিং-ও একবার বলেন, ভারত হিন্দুদের জন্য ‘প্রাকৃতিক আবাসস্থল’। হিন্দুরা ভারতে আশ্রয় চাইলে স্বাগত জানানো হবে। বর্তমানে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে প্রায় ২ লাখ হিন্দু ভারতে বাস করছে। ২০১৪ সালের মে মাসে মোদি ক্ষমতায় আসার পর, মধ্যপ্রদেশের ১৯০০০ হিন্দু শরণার্থীদের দীর্ঘমেয়াদী ভিসা দেয়া হয়। রাজস্থান ও গুজরাট প্রদেশে যথাক্রমে ১১ হাজার ও ৪ হাজার শরণার্থীকে দীর্ঘমেয়াদী ভিসা দেয়া হয়েছে। এপ্রিল মাসে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দীর্ঘমেয়াদী ভিসার জন্য অনলাইনে আবেদন করার পদ্ধতি চালু করে। বর্তমানে রাজস্থান প্রদেশের জোধপুর, জইসলমার, বিকানের ও জয়পুর শহরে প্রায় ৪০০ পাকিস্তানী হিন্দুর বসবাস। বাংলাদেশ থেকে ভারতে যাওয়া হিন্দু শরণার্থীরা মূলত পশ্চিমবঙ্গ ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশগুলোতে বসবাস করে। শিখ শরণার্থীরা রয়েছে পাঞ্জাব, দিল্লি ও চ-ীগড়ে। কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউনাইটেড প্রগ্রেসিভ অ্যালায়েন্স-এর দ্বিতীয় মেয়াদে ৫ বছরে মোট ১০২৩ শরণার্থীকে ভারতীয় নাগরিকত্ব দেয়া হয়। এবার ১ বছরের মাথায়ই সে সংখ্যার প্রায় ৪ গুণ বেশী শরণার্থীকে নাগরিকত্ব দিয়েছে বিজেপি সরকার।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৪:১৮ অপরাহ্ণ | জুন ১৫, ২০১৫