| দুপুর ২:২৪ - বুধবার - ৩০শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ৫ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

নান্দাইলে আদালতের আদেশ ও ১৪৪ ধারা ভেঙ্গে সরকারীভাবে নির্মিত মহিলা মার্কেট জোরপূর্বক ভেঙ্গে ফেলার অভিযোগ

 

স্টাফ রিপোর্টার,২৫ মে ২০১৫, সোমবার:
ময়মনসিংহের নান্দইল উপজেলা সদরের বাজারে আদালতের স্থিতবস্থার আদেশ ও প্রশাসনের ১৪৪ ধারা ভেঙ্গে সরকারের ও বিদেশী দাতা সংস্থার অনুদানে নির্মিত একটি মহিলা মার্কেট জোরপূর্বক ভেঙে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকারী এই স্থাপনাটি ভাঙার সময় নান্দাইল দেওয়ানি আদালতের স্থিতবস্থার আদেশ ও প্রশাসনের ১৪৪ ধারা জারী থাকলেও কোন প্রকার তোয়াক্কা না করে নান্দাইল মুক্তিযোদ্ধা সংসদ তাদের লোকজনদের দিয়ে মার্কেটটি ভেঙ্গে ফেলেছেন বলে অভিযোগে উলেস্নখ করা হয়েছে।
অভিযোগে বলা হয়েছে, ২০০২ সালে সরকার ও দাতাসংস্থার সমন্বয়ে স্থানীয় সরকারে পল্লী উন্নয়ন ২১ প্রকল্পের মাধ্যমে সারা দেশের ন্যায় নান্দাইলে মহিলাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে একটি মহিলা মার্কেট স্থাপন করে ১২ জন মহিলাকে প্রশিক্ষণের পর তাদের ব্যবসার জন্যে বরাদ্দ দেয়া হয়। বরাদ্ধ প্রাপ্তরা প্রতিমাসে সরকারী রাজস্ব প্রদান করে ব্যবসা চালিয়ে তাদের সংসার চালিয়ে আসছিলেন। গত বছর নান্দাইল মুক্তিযোদ্ধা সংসদের আবেদনের প্রেক্ষিতে এই মার্কেটের পাশে ৮ শতাংশ জায়গা তাদের নামে বরাদ্দ দিয়ে নান্দাইল ভূমি কর্মকর্তা (এসি ল্যান্ড) সরেজমিনে তাদেরকে বুঝিয়ে দেন। কিন’ তারপরও এই মার্কেটের ভিতরে মুক্তিযোদ্ধাদের জায়গা আছে বলে মার্কেট ভেঙ্গে ফেলার হুমকী দিয়ে আসছিল। এই হুমকীর প্রেক্ষিতে মার্কেটের ব্যবসায়ী মহিলাদের পক্ষ থেকে শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হাছিনা বেগম জেলা পুলিশ প্রশাসন বরাবরে গত ১৪ মে এই ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়ার একটি আবেদন করেন এবং ১৮মে নান্দাইল দেওয়ানী আদালতে একটি মামলা (মামলা নং-৭৪/১৫) দায়ের করেন। এই মামলার প্রেক্ষিতে আদালত এই মার্কেটের উপর স্থিতবস্থা জারী ও নান্দাইল মুক্তিযোদ্ধা সংসদকে শো-কজ করেন। স্থিতবস্থা জারীর পরও মার্কেটটি ভেঙে ফেলা হবে এই খবর পেয়ে আইন-শৃংখলা অবনতির আশঙ্কা করে গত ২০ তারিখে স্থানীয় প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারী করেন। কিন্তা আদালতের স্থিতবস্থার আদেশ অমান্য করে এবং ১৪৪ ধারা ভেঙে নান্দাইল মুক্তিযোদ্ধা সংসদ তাদের ভাড়া করা লোকজন দিয়ে মার্কেট ভেঙে দেয়। এ অবস্থায় মার্কেটের মহিলা ব্যাবসায়ীরা তাদের দোকানের লড়্গ লক্ষ টাকার মালামাল নস্টসহ ব্যবসায়ীকভাবে ক্ষতিগ্রস’ হওয়ায় দিশেহারা হয়ে পরেছেন। এ ব্যাপারে সুষ্ঠু তদনেত্মর মাধ্যমে তাদের ক্ষতিপূরণসহ মার্কেট পুণরম্নদ্ধারের দাবী জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে নান্দইল উপজেলা প্রকৌশলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মার্কেট ভেঙ্গে ফেলার আগেই খবর পেয়ে এটি রক্ষার্থে প্রশাসন বরাবরে তারা চিঠি দিয়েছিলেন প্রশাসন চেষ্টা করেও এটি রক্ষা করতে পারেনি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহা নূর আলম জানান, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের জায়গাটি বুঝিয়ে দেয়া ব্যাপারে ভূমি অফিসের কিছূ গাফিলতির কারনে এ ঘটনাটি ঘটেছে। বিষয়টির ব্যাপারে আমাদের নজর রয়েছে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে এব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হ”েছ। নান্দাইল মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মাজহার”ল হক প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারীর কথা স্বীকার করে এ ব্যাপারে বলেন, সরকারে দেয়া আমাদের মুক্তিযোদ্ধা সংসদের জায়গা আমরা দখলে নিয়েছি। আদালতের কোন আদেশের কথা আমাদের জানা নেই।#

সর্বশেষ আপডেটঃ ৮:১৮ অপরাহ্ণ | মে ২৫, ২০১৫