| রাত ৯:৪৯ - বৃহস্পতিবার - ২৪শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ২৯শে রবিউস সানি, ১৪৪৪ হিজরি

ময়মনসিংহে শিক্ষার পরিবেশ ও মানসম্মত শিক্ষা বিষয়ে সেমিনার

এএইচএম মোতালেব: ২২ মে, শুক্রবার,
একবিংশ শতাব্দীর প্রেক্ষাপটে ধর্মপ্রদেশীয় শিক্ষা ব্যবস্থা, দক্ষ শিক্ষক, শিক্ষার পরিবেশ ও মানসম্মত শিক্ষা শীর্ষক দিনব্যাপী সেমিনার কারিতাস ময়মনসিংহ আঞ্চলিক কার্যালয়ের হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ফরমেশন অব ইয়ুথ এন্ড টিচার্স প্রোগ্রাম (এফওয়াইটিপি) কারিতাস আঞ্চলিক কার্যালয়ের উদ্যোগে ময়মনসিংহ ক্যাাথলিক ধর্মপ্রদেশ এর সহযোগিতায় আঞ্চলিক পারচালক অপূর্ব ম্রং এর সভাপতিত্বে সেমিনারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন রেভারেন্ট ফাদার রবার্ট মানখিন, সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নটরডেম কলেজ এর প্রভাষক ফাদার প্লাসিক রোজারিও, প্রবন্ধের উপর আলোচনা করেন প্রধান শিক্ষক নিশিকান- জাম্বিল, প্রধান শিক্ষক মার্শেল চিছাম, শিক্ষক চার্লস নকরেক, শিক্ষক রোজলীন নকরেক, পিও সেকেন্দ্র স্নাল, শিক্ষক শিলা দিও (হালুয়াঘাট), শিক্ষক পুর্নিতা জেংচাম(মধুপুর), তৃষ্ণা ম্রং (নালিতাবড়ী), প্রীতি কুবি (কলমাকান্দা মিশন), সহকারী প্রধান শিক্ষক হলিফ্যামিলি হাইস্কুল(ময়মনসিংহ) সিস্টার রিনা পালমা,
নটরডেম কলেজ এর প্রভাষক ফাদার প্লাসিক রোজারিও তার প্রবন্ধে উল্লেখ করেন কাথলিক চার্চ নীতিগতভাবে সরকারের জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ সমর্থন করেছেন। বহু প্রতিক্ষার পর দেশের জন্য একটি জাতীয় শিক্ষানীতি প্রনয়ন হয়েছে। যে উদ্দেশ্যে জাতীয় শিক্ষানীতি করা হয়েছে তা নীতিগতভাবে গ্রহনযোগ্য। নতুন শিক্ষানীতিতে খুবই দৃঢ়তার সাথে উল্লেখ করা হয়েছে যে প্রাথমিক শিক্ষা হবে সার্বজনীন ও অবৈতনিক এবং এ শিক্ষার জন্য রাষ্ট্র সম্পূর্ণভাবে দায়বদ্ধ এবং রাষ্ট্রকেই এ দায়িত্ব পালন করতে হবে। (শিক্ষানীতি-২,খ), যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চার্চ কর্তৃক পরিচালিত এবং নিজস্ব আয়ের উৎস আছে সে সকল ক্ষেত্রে প্রয়োজনে সরকারের শিক্ষাখাত বিবেচনায় বরাদ্দ দেয়া হবে। (শিক্ষানীতি-২৮/২৬)। এতে বলা হয়েছে যে সরকারের জাতীয়করণ প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে। প্রাথমিক শিক্ষার দায়িত্ব বেসরকারী বা এনজিও খাতে হস-ান-র করা যাবে না (শিক্ষানীতি-২,খ)। কাথলিক মন্ডলির শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এক পরিসংখ্যানে উল্লেখ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা-১, কলেজ-৮, উচ্চ বিদ্যালয়- ৪৯টি, জুনিয়র স্কুল, প্রাথমিক ও প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয়-৫১০টি, কারিতাস “আলোঘর”দ্বারা পরিচালিত স্কুল-১০০০, হোস্টেল-৬ টি রয়েছে। এ শিক্ষানীতির আলোকে সকল শিক্ষদের দুর্বল স’ানগুলোকে স্বস্ব উদ্যোগে সঠিক জায়গায় নিতে হবে। ক্যাথলিক মন্ডলিগন জায়গা হারাবেন কিন- প্রত্যেকেই সরকারী চাকুরী পাবেন। ফলে সকল প্রকার সরকারী সুযোগসুবিধা ভোগ করবেন। সেজন্যে প্রয়োজন যোগ্যতা অর্জন করা। কাল বিলম্ব না করে উচ্চ শিক্ষা গ্রহনের উদ্যোগ নিন। সেমিনারে ৫০জন প্রধান শিক্ষক, সহকারী প্রধান শিক্ষক, সহকারী শিক্ষক ও ব্যবস’াপনা কমিটির সদস্যগন অংশগ্রহন করেন। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন সরকারের শিক্ষানীতির আলোকে ক্যাথলিক মন্ডলি পরিচালিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো চলবে। ইতিমধ্যে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর আদিবাসীরাও তাদের ভাষায় ছাপানো বই পাবেন।
কাজেই এ নীতির সফলতা অর্জনে সকলপ্রকার সহযোগিতা প্রদানের প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। সকল শিক্ষককে তাদের স্ব-স্বযোগ্যতা অর্জনের আহবান জানান। সভাপতি অপূর্ব ম্রং তার বক্তব্যে বলেন আমাদের শিক্ষকগন এগিয়ে রয়েছে বলেই আজকে কাথলিক মন্ডলি পরিচালিত বিদ্যালয়গুলোতে ফলাফল শতভাগ সফল হয়েছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৮:২২ অপরাহ্ণ | মে ২২, ২০১৫