| বিকাল ৪:১৩ - শনিবার - ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ১৪ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

করোনার খবর গোপন করে কর্মস্থলে ২২ দিন কাজ করলেন রোগী

লোক লোকান্তরঃ  করোনার খবর গোপন করে গাজীপুর কর্মস্থলে (কারখানায়)  ২২ দিন কাজ করলেন রোগী এক শ্রমিক। বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি।

 

ওই শ্রমিক ১ মে নমুনা দেন। করোনা পজিটিভ আসে তার। করোনার তথ্য গোপন করে ১ মে থেকে ২২ মে পর্যন্ত কারাখানায় কাজ করেন গার্মেন্টসকর্মী।

 

এরপর করোনা আক্রান্ত হওয়ার কথা গোপন করে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি হন। বর্তমানে সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি।

 

সিভিল সার্জন ডা. মো. ওয়াহীদুজ্জামান বলেন, সদর উপজেলার কাতুলী ইউনিয়নের আলোকদিয়া গ্রামের বাসিন্দা ও গাজীপুর বডি ফ্যাশন কারখানার এক শ্রমিক ১ মে নমুনা দেন। ১৮ মে করোনা পজিটিভ আসে তার। করোনার তথ্য গোপন করে ১ মে থেকে ২২ মে পর্যন্ত কারাখানায় কাজ করেন গার্মেন্টসকর্মী। ২৩ মে ঈদের ছুটি বাড়িতে আসেন তিনি।

 

এরপর করোনা আক্রান্ত হওয়ার কথা গোপন করে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি হন। বর্তমানে সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি।

 

টাঙ্গাইল জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৮৫ জনে। তবে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৫২জন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় তিনজন আর ভূঞাপুর উপজেলায় রয়েছেন একজন। মঙ্গলবার (০২ জুন) এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন টাঙ্গাইলের সিভিল সার্জন ডা. মো. ওয়াহীদুজ্জামান।

 

আরও পড়ুন – বাসে উঠে বাড়িতে গেলেন করোনা রোগী 

 

তিনি বলেন, ২৮ মে ঢাকায় পাঠানো নমুনা পরীক্ষার সংশোধনী ফলাফলে টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় আরও দুইজনের করোনা শনাক্ত হয়। টাঙ্গাইল পৌর এলাকার কচুয়াডাঙ্গা এলাকার বাসিন্দা ও সাবেক এক সেনাসদস্য ঘাটাইল ক্যান্টনমেন্ট হাসপাতালে নমুনা দেন।

 

সেখানে তার নমুনা পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ আসে। বর্তমানে তিনি ঘাটাইল ক্যান্টনমেন্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

 

সিভিল সার্জন বলেন, এখন পর্যন্ত জেলার আক্রান্তদের মধ্যে চারজন মারা গেছেন। হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২৬ জন। বাড়িতে আইসোলেশনে রয়েছেন ১১৮ জন। এ পর্যন্ত জেলায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ৫৪৬৬ জনের।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৪:৫২ অপরাহ্ণ | জুন ০২, ২০২০