| দুপুর ১২:৩৮ - শুক্রবার - ১২ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ১৩ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

ময়মনসিংহ শিক্ষাবোর্ডে পাশের হার ৮০.১৩ জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭,৪৩৪ শিক্ষার্থী

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডে ৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অভূতপূর্ব সাফল্য

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ   ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এবারই প্রথম এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল ঘোষনা করা হয়েছে। এই শিক্ষা বোর্ডে পাশের হার শতকরা ৮০ দশমিক ১৩ ভাগ। জিপিএ+৫ পেয়েছে ৭ হাজার ৪৩৪ জন।

 

এরমধ্যে বিজ্ঞান শাখা থেকে ৭ হাজার ২৪৯, মানবিক শাখা থেকে ১৬৭ জন এবং ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় ১৮ জন জিপিএ+৫ পেয়েছে।

 

শিক্ষাবোর্ডের অধিনে চার জেলার (শেরপুর, জামালপুর, নেত্রকোনা ও ময়মনসিংহ) এক হাজার ২৮১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে ১৩১টি কেন্দ্রে সর্বমোট এক লক্ষ ২৬ হাজার ২৪৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে এক লক্ষ ২৪ হাজার ৯৫৯ শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করে পাস করেছে এক লক্ষ ১২৫ জন। এরমধ্যে ছাত্র সংখ্যা ৫০ হাজার ৯৯৪ জন এবং ছাত্রী সংখ্যা ৪৯ হাজার ১২৫ জন।

 

জেলা ভিত্তিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী শেরপুর জেলায় পাসের হার ৮৩ দশমিক ১৭, ময়মনসিংহ জেলায় পাসের হার ৮০ দশমিক ০৫, নেত্রকোনা জেলায় ৭৯ দশমিক ৭৪ এবং জামালপুর জেলায় পাসের হার ৭৮ দশমিক ৯৯ ভাগ।

 

এদিকে জিপিএ-৫ বিবেচনায় ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা এগিয়ে এবং পাশের হারে মেয়েদের চেয়ে ছেলেরা এগিয়ে এই শিক্ষাবোর্ডে। জিপিএ-৫ এর তালিকায় ৩ হাজার ৬৪৬ জন ছাত্র এবং ৩ হাজার ৭৮৮ জন ছাত্রী জিপিএ-৫ পেয়েছে।

 

পাশের হার ছেলে ৮০ দশমিক ১৭ ভাগ এবং মেয়ে ৮০ দশমিক ০১ ভাগ। বোর্ডে বিজ্ঞান বিভাগে পাস করেছে ৯১ দশমিক ৪৬, ব্যবসায় শিক্ষায় ৮০ মধমিক ০১ এবং মানবিক বিভাগে ৭৩ দশমিক ৩৩ ভাগ।

 

শিক্ষাবোর্ডের অধিনে শতভাগ কৃতকার্য প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২১টি এবং শতভাগ অকৃতকার্য প্রতিষ্ঠানের তালিকায় ময়মনসিংহ জেলার ধোবাউড়া উপজেলার একটি ও জামালপুর জেলার একটি’সহ ২টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। বোর্ডে ফেল করেছে ২৪ হাজার ৮৩৪ জন।

 

জেলা ভিত্তিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী ময়মনসিংহ জেলায় ৫৫৪৬৯ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করে ৪৪ হাজার ৪০৫ জন কৃতকার্য হয়েছে। পাসের হার ৮০ দশমিক ০৫। শেরপুর জেলায় ১৫ হাজার ৮৬৩ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করে ১৩ হাজার ১৯৩ জন কৃতকার্য হয়েছে। পাসের হার ৮৩ দশমিক ১৭। নেত্রকোনা জেলায় ২২ হাজার ৪১১ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করে ১৭ হাজার ৮৭১ জন কৃতকার্য হয়েছে। পাশের হার ৭৯ দশমিক ৭৪। জামালপুর জেলায় ৩১ হাজার ২১৬ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করে ২৪ হাজার ৬৫৬ জন কৃতকার্য হয়েছে। পাসের হার ৭৮ দশমিক ৯৯ ভাগ।

 

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডে ভালো ফলাফল অর্জন করেছে যারা –

বোর্ডে সবচেয়ে ভালো ফলাফল অর্জনকারি ময়মনসিংহ গার্লস ক্যাডেট কলেজ থেকে ৫১ জন পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে শতভাগ পাশ করে অভুতপূর্ব সাফল্য অজর্ন করেছে। কলেজের ৫১জন শিক্ষার্থীর মাঝে ৫০জন জিপিএ-৫ এবং একজন শিক্ষার্থী ‘‘এ’’ মাইনাস পেয়েছে ।

 

ময়মনসিংহ বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৩২১ জন পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে পাস করেছে ৩১৯ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৬৭ জন।

 

জিলা স্কুল থেকে ২৮১ জন পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে পাস করেছে ২৭২ জন। জিপিএ- ৫ পেয়েছে ২২৯ জন।

 

ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ১৮৩ জন পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে শতভাগ পাসের মাধ্যেমে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪১ জন।

 

প্রিমিয়ার আইডিয়াল স্কুল থেকে ৩২৩ জন পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে ৩০০ জন পাস করেছে এবং ১৩৩ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

 

মুকুল নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭৭৩ জন পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে ৬৬৭ জন পাস করেছে এবং ১০৩জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

 

প্রগ্রেসিভ মডেল স্কুল থেকে ৩৪৪ জন পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে ৩৩২ জন পাস করেছে এবং ৯৩ জন জিপিএ+৫ পেয়েছে।

 

বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. গাজী হাসান কামাল জানান, শিক্ষানগরী হিসেবে খ্যাত ময়মনসিংহ জেলায় বরাবরই ভালো ফলাফল করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় এবার এই বোর্ডের অধিনে প্রথম ফলাফল আশাব্যঞ্জক হয়েছে। তবে আগামীতে আরো ভালো ফলাফল এবং ফেলের সংখ্যা কমানোর ক্ষেত্রে উদ্যোগ নেয়া হবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৭:১৯ অপরাহ্ণ | মে ৩১, ২০২০