| বিকাল ৪:০২ - শনিবার - ৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২২শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ৭ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

ময়মনসিংহের সড়ক দুর্ঘটনা রোধের অজুহাতে অর্ধশতাধিক সরকারি গাছ কর্তন!

মোঃ ওবাইদুল হকঃ সড়ক দুর্ঘটনা রোধের অজুহাতে অর্ধশতাধিক গাছ কাটার অভিযোগ উঠেছে ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার টাংগাব গ্রামে পাঁচজনের বিরুদ্ধে।

 

অভিযুক্তরা হলেন-টাংগাব ফাজিল মাদরাসার অফিস সহকারী নিজাম উদ্দিন খাঁ (৪০), তার ভাই রশিদ খাঁ (৩৮), ইসলাম উদ্দিন খাঁ (৫১), টাংগাব ফাজিল মাদরাসার শিক্ষক মনিরুজ্জামান খাঁ জামাল (৪৭) এবং পিয়ন হাবিব খাঁ। তাদের মধ্যে নিজাম উপজেলার ১৫ নম্বর টাংগাব ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন সাগরের আত্মীয়।

 

অভিযুক্তদের দাবি, মোফাজ্জল হোসেন সাগরের নির্দেশে টাংগাব ফাজিল মাদরাসার সামনের রাস্তার (ময়মনসিংহ-টোক সড়কের) দুই পাশের সরকারি গাছগুলো তারা কেটেছেন।

 

 

তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে, তারা গাছগুলো কেটে কিছু বিক্রি করেছেন আর কিছু নিজেরা নিয়ে লুকিয়ে রেখেছেন। বছর খানেক আগেও একই এলাকার শতাধিক গাছ কাটা হয়েছে বলে জানা গেছে।

 

নাম না প্রকাশের শর্তে একাধিক স্থানীয় ব্যক্তি জানান, মঙ্গলবার (২৬ মে) থেকে সড়কের দুই পাশে থাকা কাঁঠাল, আকাশি, বেলজিয়াম, তাল, সুপারিসহ বিভিন্ন জাতের প্রায় ৫০টি গাছ তারা দাঁড়িয়ে থেকে কাটান। এর কিছু বিক্রি করেন আর কিছু প্রশাসন খবর পাওয়ায় লুকিয়ে রেখেছেন।

 

বৃহস্পতিবার (২৮ মে) সাইজ করে কিছু গাছ স্থানীয় কাঠ ব্যবসায়ী মো. রায়হান ও শামছুল হক বেপারীর কাছে বিক্রি করে দেন রাশিদ ও জামাল। আর বাকি কাঠগুলো ডাকবাংলো বাজারের ইব্রাহিমের স’মিলে রাখা হয়েছে।

 

স্থানীয়রা জানান, গত সোমবার (২৫ মে) ঈদের দিন দুপুরে পাশের কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার দুই যুবক মোটরসাইকেল চালিয়ে যাওয়ার সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সাথে ধাক্কা খেয়ে প্রাণ হারান। এ অজুহাতে রাস্তার পাশের প্রায় ৫০টি গাছ কেটে নেওয়া হয়েছে।

 

অভিযুক্ত নিজাম উদ্দিন বলেন, টাংগাব ইউপি চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন সাগরের সাথে পরামর্শ করে গাছগুলো কাটা হয়েছে। সড়কের দুর্ঘটনাপ্রবণ অংশে ঝোপ-ঝাড় পরিষ্কার করা হয়েছে, কয়েকটি ছোট গাছ কাটা হয়েছে।

 

গাছ কাটার নির্দেশ দেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে টাংগাব ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন সাগর বলেন, ওই স্থানে গত দুই মাসেই গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে পাঁচজন মারা গেছেন। সেখানে একটি টার্নিং পয়েন্ট থাকায় অনেকে গাছগুলো দেখতে পান না। তাই দুর্ঘটনা রোধে স্থানীয়রা ছোট ছোট গাছ ও কিছু কাঁঠাল গাছ কেটেছেন, সেগুলো সরকারি গাছ না। আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখে এসেছি। তবে আমি কাটার নির্দেশ দিয়েছি- এ খবর পুরোপুরি মিথ্যা।

 

এ ব্যাপারে ময়মনসিংহ সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, বিষয়টি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১২:৩১ অপরাহ্ণ | মে ২৯, ২০২০