| দুপুর ২:৪২ - শনিবার - ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ১৪ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

ময়মনসিংহ মেডিকেলসহ ১২টি হাসপাতালে গ্রামীণফোনের ৫০ হাজার পিপিই বিতরণ

লোক লোকান্তরঃ  ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ নির্বাচিত ১২টি হাসপাতালে করোনা মহামারিতে নিজেদের ভূমিকার অংশ হিসেবে ৫০ হাজার মেডিকেল গ্রেড ফুল সেট (পিপিই) বিতরণ সম্পন্ন করেছে গ্রামীণফোন।

 

পিপিই’র প্রতি সেটে রয়েছে সম্পূর্ণ প্রতিরোধমূলক পোশাক, কেএন ৯৫ মাস্ক, ল্যাটেক্স গ্লাভ এবং গগলস।

 

নির্বাচিত ১২টি হাসপাতালগুলো হলো- ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতাল, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, ঢাকা মহানগর জেনারেল হাসপাতাল, মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ, শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ, শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল এবং সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতাল।

 

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) বিস্তাররোধে দুই মাসেরও অধিক সময় ধরে দেশের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা সামনে থেকে সাহসিকতার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। এই সম্মুখযোদ্ধাদের নিরাপত্তার জন্য গ্রামীণফোন স্বাস্থ্য অধিদফতর নির্ধারিত ১২টি হাসপাতালে ৫০ হাজার মেডিকেল গ্রেড মানসম্পন্ন পেশাদার পিপিই বিতরণ সম্পন্ন করেছে।

 

এ নিয়ে গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান বলেন, ‘এই সঙ্কটকালীন সময়ে দেশের কল্যাণে সামনে থেকে যারা করোনা মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন গ্রামীণফোন তাদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞ জানাচ্ছে। এটা কোন সহজ কাজ নয় এবং আমাদের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা অত্যন্ত নিষ্ঠা ও দায়িত্বের সাথে এ মহৎ কাজটি করে যাচ্ছেন।

 

আমাদের বিশ্বাস, সম্মিলতভাবে সকল ক্ষেত্রে পারস্পারিক সহযোগিতার মাধ্যমে আমরা এ সঙ্কট কাটিয়ে উঠতে পারবো। এ উদ্যোগটি সফলভাবে সম্পন্ন করতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পাশাপাশি উৎসাহ, সদিচ্ছা ও সাহস দিয়ে যারা আমাদের পাশে থেকেছেন তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ।’

 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘এই রকম একটি সময়োপযোগী ও প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়ার জন্য আমি গ্রামীণফোনের প্রতি কৃতজ্ঞ। এ চলমান বৈশ্বিক মহামারির সময়ে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ। এটি নিঃসন্দেহে গ্রামীণফোনের জীবন রক্ষাকারী উদ্যোগ।

 

এছাড়া করোনা আক্রান্তদের সেবাদানে নিয়োজিত ডিজিএইচএস সার্টিফায়েড ২৫ হাজার চিকিৎসককে পরবর্তী ছয় মাসের জন্য মাত্র এক টাকা টোকেন মূল্যের বিনিময়ে প্রতিমাসে ৩০ জিবি ইন্টারনেটের সুবিধা দিচ্ছে গ্রামীণফোন।

 

দেশের অতিদরিদ্র জনগোষ্ঠীকে জরুরি সহায়তায় তহবিল গঠনে গ্রামীণফোন ও ব্র্যাক যৌথ প্রচেষ্টায় ‘ডাকছে আমার দেশ’ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে । এই উদ্যোগের মাধ্যমে গ্রামীণফোন ইতিমধ্যে ১ লাখ পরিববারের মধ্যে খাদ্য সহায়তা পেীঁছে দিয়েছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১২:০৪ অপরাহ্ণ | মে ২৯, ২০২০