| সন্ধ্যা ৬:০৫ - বৃহস্পতিবার - ১১ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ২৮শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ - ১লা শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

শ্রীবরদী সীমান্তে হুন্ডি ব্যবসায়ীরা তৎপর, অবাধে বিক্রি হচ্ছে ভারতীয় রুপি

শ্রীবরদী প্রতিনিধি:   শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার সীমান্তবর্তী সিংগাবরুনা ইউনিয়নের বিভিন্নস্থানে গড়ে ওঠা হুন্ডি ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের সহায়তায় প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকার ভারতীয় রূপি অবাধে বিক্রি হচ্ছে।

 

শ্রীবরদী সীমান্ত এলাকায় চোরাচালান ব্যবসা ব্যপক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় হুন্ডি ব্যবসায়ীদের তৎপরতা অনেকটাই বৃদ্ধি পেয়েছে। আইন-শৃংখলা বাহিনীর কতিপয় অসাধু সদস্যদের ম্যানেজ করে সীমান্তবর্র্তী এলাকাতে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তিরা হুন্ডির মাধ্যমে ভারতীয় রুপি এনে চোরাকারবারীদের কাছে মোটা অংকের টাকা কমিশন নিয়ে ভারতীয় রূপি হাত বদল করে আসছে। হুন্ডি ব্যবসায়ীদের কাছে চড়া কমিশনে রুপি নিয়ে চোরাকারবারীরা পার্শ্ববর্তী ভারত থেকে রুপির বিনিময়ে চোরাই গরু, মাদক, বাইসাইকেলসহ বিভিন্ন ভারতীয় সামগ্রী এদেশে আনছে।

 

বিজিবির অভিযানে কর্ণঝোড়া পাহাড়ি এলাকায় রেকর্ড সংখ্যক চোরাই গরু আটকের খবর পাওয়া গেলেও কোনভাবেই বন্ধ হচ্ছে না ভারতীয় রুপির ব্যবসা।

 

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, একটি সংঘবদ্ধ চক্রের সহায়তায় স্থানীয় হুন্ডি ব্যবসায়ীরা সীমান্ত এলাকায় ভারতীয় রুপি এনে অবাধে বিক্রি করে আসছে। আর তাদের সহযোগিতা করছে স্থানীয় দরিদ্র ব্যক্তিরা। দরিদ্রের অভাবকে পূঁজি করে হুন্ডি ব্যবসায়ীরা তাদের দিয়ে ভারতীয় রুপি হাত বদল করাচ্ছে।

 

একটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়, শ্রীবরদী এর সিংগাবরুনা ইউনিয়নে প্রায় ২০জন ব্যক্তি হুন্ডি ব্যবসার সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত রয়েছে। এদের সাথে রয়েছে প্রশাসনের সু-সম্পর্ক, ফলে অনেকটাই এরা রয়েছে ধরা ছোঁয়ার বাইরে। সিংগাবরুনার ফরহাদ, কর্ণঝোড়ার ইব্রাহিম, ছানু, ফরহাদ, আলামিন, আবুল, জলঙ্গাপাড়ার রাজা, ঝুলগাঁওয়ের আলি-আকবর, মুরগাচুরার ফারুক, মেঘাদল শয়তান বাজারের আবু জাফর বাচ্চাগেল্লা, আমিনুল ওরফে জামাই আমিনুল, আব্দুল মান্নান, চান্দাপাড়ার হান্নান ওরফে পিচ্চি হান্নানসহ একাধিক ব্যক্তি সীমান্ত অঞ্চলে হুন্ডি ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করে আসছে।

 

এ প্রসঙ্গে শ্রীবরদী এর সিংগাবরুনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রেজ্জাক মজনু’র দৃর্ষ্টি আকর্ষন করা হলে তিনি হুন্ডি ব্যবসা ও চোরাচালানের সত্যতা স্বীকার করে বলেন- স্থানীয়ভাবে আমরা এ সকল ব্যবসা বন্ধে উদ্যোগ গ্রহণ করলেও ব্যর্থ হয়েছি। এ বিষয়ে ইউএনও সহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে জানানো হলেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি।

 

৩৫ বর্ডার গার্ড বিজিবি কর্ণঝোড়া সীমান্ত ফাঁড়ির ইনচার্জ ল্যান্স নায়েক নুরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হবে। স্থানীয় সীমান্ত জনপদের গ্রামবাসীরা সীমান্ত এলাকায় হুন্ডি ব্যবসা বন্ধে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছে।

 

ছবিঃ  প্রতীকী

সর্বশেষ আপডেটঃ ৯:০৯ পূর্বাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ০৭, ২০১৭