| রাত ১১:৫২ - বুধবার - ১২ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ - ৫ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

তাড়াইল হাসপাতালে দালালের দৌরাত্ম্যে সাধারণ রোগীরা অতিষ্ঠ

আমিনুল ইসলাম বাবুল :   কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার আড়াই লাখ মানুষের একমাত্র চিকিৎসাকেন্দ্র ৫০ শয্যাবিশিষ্ট তাড়াইল হাসপাতালটি নানা সমস্যা জর্জরিত। শুধু এ উপজেলাই নয়, সহজে যাতায়াতের জন্য পার্শ্ববর্তী নান্দাইল, কেন্দুয়া, মদন, ইটনা ও করিমগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের অনেক রোগী এ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসেন। সরকারি এ হাসপাতালটি দালালের দৌরাত্ম্যে সাধারণ রোগীরা অতিষ্ঠ। দালালদের দৌরাত্ম্য, নার্স সংকটসহ নানা কারণে হাসপাতালটিতে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা পদে পদে হয়রানির শিকার হচ্ছেন। এখানকার বর্তমান চিত্র দেখলে মনে হবে হাসপাতালটি নিজেই যেন বিভিন্ন দালালের দৌরাত্ম্যে রোগে আক্রান্ত হয়ে ‘লাইফ সাপোর্টে’ আছে। আর এ দালাল চক্রের কারণে হাসপাতালটি সম্পর্কে এলাকবাসীর অভিযোগের অন্ত: নেই।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০০৭ সালে হাসপাতালটি ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত হয়।  ১৭ জন নার্সের মধ্যে আছে মাত্র ৪ জন। হাসপাতালটিতে বায়োকেমিষ্ট এনালাইজার মেশিনসহ উন্নত যন্ত্রপাতি সরবরাহ করা হলেও লোকবলের অভাবে বাক্সবন্দি হয়ে পড়ে আছে।
হাসপাতালের চিকিৎসা কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করতে গিয়ে দেখা গেছে, বর্হিবিভাগে শত শত রোগী ভিড় করলেও তাঁদের টিকিট দেয়া শুরু হয় ১০টায়। হাসপাতালে আসা রোগীদের নিয়ে দালালদের টানাটানি নিত্যদিনের ঘটনা। জরুরী বিভাগের সামনে দল বেঁধে দাড়িয়ে থাকে ৩০-৪০ জন নারী ও পুরুষ দালাল। কোন রোগী এলেই ঘিরে ধরে এসব দালাল। এরপর ডাক্তার দেখানো ও প্যাথলজি টেষ্টের নামে হাতিয়ে নেয় বাড়তি টাকা। এ কারণে গ্রাম থেকে আসা সহজ-সরল রোগীদের ভোগান্তির শেষ নেই। সরকারি এ হাসপাতালটিতে বিনামূল্যে ও সহজভারে চিকিৎসা পাওয়ার কথা থাকলেও দালালচক্রের কারণে মিলছে না কাঙিক্ষত সেবা। অতিরিক্ষ টাকা গুনেও প্রতারিত হন রোগীরা। বর্হিবিভাগের সাথেই এ হাসপাতালের জরুরী বিভাগ। টিকেট কাউন্টারে দালালদের ঝটলা, এক-দুইজন ডাক্তারের ব্যক্তিগত সহকারি ও তাদের নির্দিষ্ট দালাল টিকেটে ওই ডাক্তারের কক্ষ নম্বর লিখে দেওয়ার জন্য চিৎকার-চেচামেচিতে জরুরী বিভাগের চিকিৎসার স্বাভাবিক পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এহসানুল হক মুকুল বলেন, লোকবল ও নার্স না থাকায় চিকিৎসা নিতে আসা বিপুলসংখ্যক রোগীকে সেবা দেয়া কষ্টকর হয়ে পড়েছে। হাসপাতালে দালালদের দৌরাত্ম্য সম্পর্কে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে অচিরেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।
কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো.মুখলেছুর রহমান বলেন,‘তাড়াইল হাসপাতালটি দালালের দৌরাত্ম্যে সাধারণ রোগীরা অতিষ্ঠ। এ অভিযোগ শুনেছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ২:৪৭ অপরাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৬