| রাত ১২:৩৭ - বৃহস্পতিবার - ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ - ৬ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

শেরপুরে তিন দফা দাবিতে ইউনিয়ন পরিষদ সচিবদের মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

শেরপুর প্রতিনিধি:
ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সচিবদের পদবী পরিবর্তনসহ তিন দফা দাবিতে শেরপুরে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ সেক্রেটারী সমিতি (বাপসা), শেরপুর জেলা শাখার উদ্যোগে শহরের মাধবপুর এলাকায় অবসি’ত শেরপুর প্রেস ক্লাব ভবনের সামনে এ কর্মসূচী পালন করা হয়। পরে সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী বরাবর লিখিত একটি স্মারকলিপি জেলা প্রশাসকের নিকট প্রদান করা হয়।
প্রদত্ত স্মারকলিপি সূত্রে জানা গেছে, জনগুরুত্বপূর্ণ সরকারি দায়িত্ব পালন করা সত্ত্বেও ইউপি সচিবদের নিয়মিতভাবে মাসিক বেতন-ভাতাদি প্রাপ্তির নিশ্চয়তা নেই। চাকরিশেষে তাঁদের কোন পেনশন নেই। ভবিষ্য তহবিলও নেই। সরকারি কোষাগার থেকে শতকরা ৭৫ ভাগ অর্থ জেলা প্রশাসকের তহবিলে জমা হয় এবং শতকরা ২৫ ভাগ বেতন-ভাতা ইউনিয়ন পরিষদের নিজস্ব তহবিল থেকে প্রদানের নিয়ম চালু থাকলেও ইউপি রাজস্ব তহবিলে পর্যাপ্ত অর্থের অভাবে জনপ্রতিনিধিরা নিজেদের ভাতা নিতে পারেন না। সেক্ষেত্রে ইউপি সচিবদের বেতন প্রদান করা অসম্ভব। এছাড়া ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের সেবার মান, জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের ক্ষমতা ইউপি সচিবদের দেওয়ায় ইউপির সেবার মান ও স্বচ্ছতা আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। তাই ইউপি সচিবদের দশম গ্রেড স্কেলের কর্মকর্তা মর্যাদা দিয়ে প্রশাসনিকভাবে ক্ষমতায়ন করা হলে ইউনিয়ন পরিষদের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা এবং এটি একটি জনকল্যাণকর প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে ওঠবে বলে ইউপি সচিবরা প্রত্যাশা করেন।
প্রধানমন্ত্রীর নিকট লিখিত স্মারকলিপিতে ইউপি সচিবদের তিন দফা দাবী হচ্ছে-ইউপি সচিবদের পদবী পরিবর্তনপূর্বক দশম গ্রেড স্কেলের কর্মকর্তা হিসেবে মর্যাদা প্রদান; বেতন, বোনাস, আনুতোষিক, ল্যামগ্রান্ট, শ্রান্তি বিনোদন ভাতাসহ যাবতীয় অথের্র শতভাগ সরকারি কোষাগার থেকে প্রদানের ব্যবস্থা করা এবং ইউপি সচিবদের পেনশন সুবিধা প্রদান করা। স্মারকলিপিতে এসব দাবি পূরণের জন্য প্রধানমন্ত্রীর নিকট আকুল আবেদন জানানো হয়।
এর আগে শেরপুর প্রেস ক্লাব ভবনের সামনে বেলা ১১ টা থেকে দুপুর একটা ৫০ মিনিট পর্যন্ত অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে জেলার ৫২টি ইউনিয়ন পরিষদের সচিবরা অংশ গ্রহণ করেন। এ সময় বাপসা, শেরপুর জেলা শাখার সভাপতি মো. হযরত আলী ও সাধারণ সম্পাদক রতন কুমার নাগ, মোহাম্মদ আলী, নূরে আলম সিদ্দিকী, মো. বিল্লাল হোসাইন, মো. আবু বক্কর, মো. আব্দুল মোমেন প্রমুখ বক্তব্য প্রদান করেন।
জানতে চাইলে স্মারকলিপি প্রাপ্তির সত্যতা নিশ্চিত করে জেলা প্রশাসক এ এম পারভেজ রহিম বলেন, ইউপি সচিবদের দাবি বিষয়ে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্মারকলিপিটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৮:২৮ অপরাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ০৪, ২০১৬