| রাত ১:০২ - রবিবার - ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ - ১০ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

গফরগাঁওয়ে পৌরসভার নির্বাচনে মাঠে নেই বিএনপি: শুন্য মাঠে গোল দিবে আওয়ামী লীগ

স্টাফ রিপোর্টার | ২৬ ডিসেম্বর ২০১৫, শনিবার,
ময়মনসিংহের গফরগাঁও পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ২জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত আলহাজ্ব ইকবাল হোসেন সুমন (নৌকা) ও বিএনপি মনোনীত আবদুল্লাহ আল মামুন (ধানের শীষ)। এখানে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে ব্যাপক প্রচার-প্রচারনা থাকলেও বিএনপি মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে এখন পর্যন- মাঠে প্রচার-প্রচারনা নেই। নির্বাচনী মাঠে নেই উপজেলা শাখা ও পৌর শাখা বিএনপিসহ অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা অভিযোগ সমর্থকদের। অথচ নির্বাচনের আর মাত্র ৩দিন বাকী। বিশেষ করে ৯টি ওর্য়াডের মধ্যে দলের নেতাকর্মীদের গণসংযোগ দেখা যায় না। এসর্ম্পকে বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান শাহ আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, দলের মনোনয়ন পাওয়ার পূর্বে থেকেই আমি প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। নিয়মিত গণসংযোগ ও মোবাইলে ভোটারদের সাথে কুশল বিনিময় করছি। তিনি আরও জানান, দলের নেতা-কর্মীরা মামলার কারণে প্রচারনা থেকে বিরত রয়েছে। গফরগাঁও পৌরসভা শাখা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব ফজলুল হক জানান, আমি অসুস’তার কারনে নির্বাচনী মাঠে নেই ।
বিএনপির একাধিক সর্মথক জানান, দলের জন্য উপজেলা ও পৌরশাখার প্রথম সারির কোন নেতাকর্মী প্রচার প্রচারনায় নির্বাচনী মাঠে যায়নি। ফলে দলের সাধারণ ভোটাররা চরমভাবে হতাশায় ভুগছে। এ দিক দিয়ে ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রাথীর পক্ষে প্রচারণা বেশ জমে উঠেছে ।
বিএনপির বেশ কয়েকজন নেতাকমীরা মনে করেন,র্শীষ পর্ষায়ের দলের নেতাকর্মীদের প্রচারনা দেখে গেলে দলের সাধারণ ভোটারদের মাঝে উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা যেত। ফলে বিএনপি সর্মথিত ভোটাররা কেন্দ্র গিয়ে ভোট দেয়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে । গফরগাঁও পৌসভার বিএনপির বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে, দলের মনোনীত প্রার্থী আবদুল্লাহ আল মামুন এখন পর্যন- ধানের র্শীষের প্রতীকে ভোট দেওয়ার জন্য দলের নেতাকর্মী কিংবা সাধারণ ভোটারদেরকে বলেনি । গফরগাঁও পৌরসভার ৯টি ওর্য়াডের মধ্যে কোন ওর্য়াডে দলীয় নেতাকর্মীদেরকে গণসংযোগ করতে দেখা যায়নি। উপজেলা শাখার বিএনপির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার সভাপতি/ এবং সাধারণ সম্পাদকসহ অন্যান্য ওর্য়াড পর্যায়ের নেতাকর্মীরা গণসংযোগে অংশ নেয়নি। এতে করে দলের মধ্যে চরম বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে তারা মনে করছে ধানের শীষের প্রতীকের প্রার্থী আছে বলে মনে হয়না। দলীয়ভাবে পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার ফলে নির্বাচন জাতীয় সংসদের মতো জমে উঠেছে ।
উল্লেখ্য শেষ মুহুর্তে এসে গফরগাঁও পৌরসভা নির্বাচন গত ২২ ডিসেম্বর সীমানা নির্ধারণ ও ভোটার তালিকা সংশোধন সংক্রান- জটিলতায় হাইকোট ৩ মাসের স’গিতাদেশ প্রদান করেন। বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন হাইকোর্টের অবকাশকালীন বেঞ্চ জনৈক মোহাম্মদ আলী ও হেলাল উদ্দিনের দায়ের করা রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে ৩ মাসের জন্য গফরগাঁও পৌর নির্বাচনে স’গিতাদেশ দিয়েছিলেন। বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের আদেশ স’গিত চেয়ে চেম্বার আদালতে আবেদন করেন গফরগাঁও পৌরসভার মেয়র প্রার্থী আলহাজ্ব ইকবাল হোসেন সুমন। ওই আবেদনের প্রেক্ষিতে হাইকোর্টের স’গিতাদেশ ছয় সপ্তাহের জন্য স’গিত করে আদেশ দেন অবকাশকালীন চেম্বার বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলীর আদালত। এতে করে গফরগাঁও পৌরসভা নির্বাচনে আর কোন বাধা রইলো না।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৯:১২ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ২৬, ২০১৫