| রাত ১০:৫৮ - বুধবার - ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ১৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

ময়মনসিংহে নারীদের উদ্যোগে দুর্গোৎসবের আয়োজন

স্টাফ রিপোর্টার,২০ অক্টোবর ২০১৫, মঙ্গলবারময়মনসিংহ শহরের বিভিন্ন পরিবারের নারীরা টানা ৬ বছর ধরে দুর্গোৎসবের আয়োজন করে আসছে শহরের প্রাচীন ঐতিহ্যে ঘেরা শিববাড়ি মন্দিরে। এবছরও দুর্গাপূজারও আয়োজন করছেন নারীরা।
পূজার উপকরণ কেনা থেকে শুরু করে পূজার পরিকল্পনা প্রতিমা তৈরী, মঞ্চ নির্মাণ, প্রসাদ, ক্রয় ও বিতরণ এবং দু’দিনব্যাপী জাঁকালো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে শিববাড়ি মন্দিরের এ নারীরা।
মঙ্গলবার দুপুরে শহরের ঐতিহ্যবাহী এ মন্দিরে গিয়ে দেখাযায় নারীদের কর্মব্যস’তা তাদের সংগে কথা বলে জানাযায়, ২০১০ সালে পূজা, সাংস্কৃতিক, স্বেচ্ছাসেবক, আলোকসজ্জা, অর্থ বিষয়ক ও শৃঙ্খলা উপ-কমিটি গঠন করা হয়। আলোচনা সভা করে নিজেরাই দায়িত্ব বুঝে নিয়ে প্রতিমা কেনা থেকে শুরু করে সব কাজই সফলতার সঙ্গে শেষ করেন তারা। ২০১০ সালে শুরুতে সদস্য সংখ্যা ছিল মাত্র ১৩৫ জন। এখন ২৬০ সদস্য। এর মধ্যে আমেরিকা, কানাডা, ভারত ও লন্ডনের ৯ জন নারী সদস্য রয়েছে।
আরও জানান তারা অষ্টমী ও দশমী পূজার দিন কমিটিভুক্ত সব নারীই একই রকম শাড়ি পড়ে অষ্টমী পূজোতে অঞ্জলি দেবে। দশমীতেও একই শাড়ি পড়ে সিঁদুর খেলা খেলে দুর্গা মাকে ব্রক্ষপুত্র নদের তীরে বিসর্জন দেবে।
বিশিষ্ট চক্ষু চিকিৎসক ডা: হরিশংকর দাসের পত্নী শুক্লা দাশ ও শিববাড়ি মন্দির কার্যকরি কমিটির সাধারণ সম্পাদক স্বপন সেন গুপ্তের স্ত্রী শারদীয় দুর্গোৎসব উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুচিত্রা সেনগুপ্তা বলেন, শিববাড়ি মন্দিরের মূল কমিটির সহযোগিতায় ২০১০ সালে প্রথমবারের মতো আমাদের দুর্গাপূজা সম্পন্ন হয়। এবার নারীদের সম্মিলিত উদ্যোগ আর প্রচেষ্টায় সফলভাবে দুর্গাপূজা সম্পন্ন হবে বলে জানান শিববাড়ি মন্দিরের শারদীয় দুর্গোৎসব উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুচিত্রা সেনগুপ্তা।
শিব মন্দির কার্যকরি কমিটির সাধারণ সম্পাদক স্বপন সেন গুপ্ত বলেন, নিজেরাই সফলভাবে দুর্গাপূজা উৎসবের আয়োজন করেছে। সমাজে নারীদের এগিয়ে যাওয়ার এটি একটি বড় দরনের দৃষ্টান-। আমাদের ধারণা ছিল নারীরা প্রথম বছর এ উৎসব পালন করে দ্বীতীয় বছর আর পারবে না। কিন’ আমাদের ধারণা নারীরা পাল্টে দিয়েছে। আমরা গর্বিত নারীদের আয়োজনে দুর্গোৎসব ৬ষ্ঠ বর্ষে পদার্পণ করেছে।

 

সর্বশেষ আপডেটঃ ৭:৪২ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ২০, ২০১৫