| ভোর ৫:৪৪ - শুক্রবার - ১২ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ১৩ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

কিশোরগঞ্জে স্কুলগেটে ছাত্রীকে কুপিয়ে জখম জড়িতদের গ্রেফতার দাবিতে মানববন্ধন

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি, ১৯ অক্টোবর ২০১৫, সোমবার,
বখাটের প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কিশোরগঞ্জের নান্দলা অছম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের গেটে দশম শ্রেণীর ছাত্রী স্মৃতি আক্তার (১৪) কে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় এলাকাবাসী ও শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ কর্মসূচী অব্যাহত রয়েছে। আসামিদের গ্রেফতার ও দ্রুত বিচারের দাবিতে সোমবার তারা মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়েছে। বিদ্যালয়ের সামনে কিশোরগঞ্জ-ঢাকা মহাসড়কের পাশে সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত প্রায় দুই ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচীতে শিড়্গক-শিক্ষর্থীসহ স্থানীয় বিপুল সংখ্যক এলাকাবাসী অংশ নেন। এতে সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মামুন আল মাসুদ খান, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আমিনুল হক, সহকারী শিক্ষক আনোয়ার হোসেন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। বক্তারা অবিলম্বে বখাটে তৌহিদসহ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করে দ্রুত বিচার আইনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। এদিকে স্কুলছাত্রী স্মৃতি আক্তারকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় তার মামা আবদুল কাইয়ুম বাদী হয়ে বখাটে তৌহিদসহ ৬জনকে আসামি করে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা করেছেন। মামলার অন্য আসামিরা হচ্ছে, বখাটে তৌহিদের সহযোগী সাইকুল, মামুন ও সাদ্দাম এবং তৌহিদের বাবা হুমায়ুন মিয়া ও মা ঝরণা আক্তার। তবে ঘটনার দুই দিন পেরিয়ে গেলেও পুলিশ এখনো মূল অভিযুক্ত বখাটে তৌহিদ (১৮) কে আটক করতে পারেনি। ছয় আসামির মধ্যে কেবল মামুন (১৯) নামে তৌহিদের এক সহযোগীকে রোববার আটক করেছে পুলিশ।
সন্ত্রাসী হামলার শিকার স্মৃতি আক্তার পণকলিমা গ্রামের নানার বাড়িতে থেকে লেখাপড়া করতো। পার্শ্ববর্তী কটিয়াদী উপজেলার বনগ্রামের বাসিন্দা পিতা হেলাল উদ্দিন ৮/৯ বছর আগে মারা যান। তার মা কিরণ আক্তার ঢাকায় গার্মেন্টে কাজ করে। স্মৃতি পড়াশোনায় ভালো হওয়ায় দিনমজুর মামা আবদুল কাইয়ুমের বাড়িতে থেকে সে পড়াশোনা করতো।
পুলিশ ও এলাকাবাসীর ভাষ্যমতে, স্মৃতিকে বেশ কিছুদিন ধরেই পণকলিমা গ্রামের অটোচালক হুমায়ুন মিয়ার ছেলে তৌহিদ প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে রাজি হতে চাপ প্রয়োগ করে আসছিল। কিন’ স্মৃতি এতে বরাবরই অসম্মতি জানায়। গত কিছুদিন ধরে স্কুলে যাওয়া-আসার পথেও তৌহিদ স্মৃতিকে উত্যক্ত করত। সেতু এ ব্যাপারে কয়েকবার পরিবারের নিকট অভিযোগও করেছে। এ নিয়ে একবার শালিসে তৌহিদের বিচার হলেও সে নিবৃত্ত হয়নি। এসএসসির নির্বাচনী পরীড়্গা শুরম্নর দিন রোববার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে স্মৃতি স্কুলের গেটের সামনে পৌঁছা মাত্রই আগে থেকে ওত পেতে থাকা তৌহিদ ও তার তিন সহযোগী স্মৃতির ওপর হামলা চালায়। এ সময় তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে উপর্যুপরি কুপিয়ে স্মৃতিকে গুরম্নতর আহত করে। এ সময় স্মৃতির আর্ত চিৎকারে শিড়্গার্থীসহ আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে সহযোগীদের নিয়ে তৌহিদ দ্রম্নত পালিয়ে যায়। বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিড়্গকসহ স্থানীয়রা স্মৃতিকে দ্রম্নত কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই সে বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এদিকে এ ঘটনার পর পরই শিক্ষার্থীসহ স্থানীয় এলাকাবাসী প্রতিবাদে ফুঁসে ওঠে। তারা কিশোরগঞ্জ-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। মহাসড়ক অবরোধের ফলে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশ এসে তাদেরকে সরিয়ে দিলে মহাসড়কে প্রায় দুই ঘন্টা পর যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।
কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মীর মোশারফ হোসেন জানান, এ ঘটনায় স্কুলছাত্রীর মামা আবদুল কাইয়ুম বাদী হয়ে ৬ জনের বিরম্নদ্ধে থানায় মামলা করেছেন। ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্ত তৌহিদ ও তার বাবা-মা পলাতক রয়েছে। মামলার এক আসামিকে ইতোমধ্যে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৬:৪৪ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ১৯, ২০১৫