| সকাল ৭:১৫ - সোমবার - ৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ৯ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

ত্রিশালে নিখোঁজের ২৮ ঘন্টা পর মাটির নিচে থেকে ১ম শ্রেণীর ছাত্রের লাশ উদ্ধার

ত্রিশাল প্রতিনিধি,১৮ অক্টোবর ২০১৫, রবিবারঃ  ময়মনসিংহের ত্রিশালের ধানীখোলায় নিখোঁজের ২৮ ঘন্টা পর মাটির নিচে চাপা দেয়া মৃত অবস্থায় ১ম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার করেছে ত্রিশাল থানা পুলিশ। এ ঘটনায় আতংক বিরাজ করছে আর পরিবারে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।
নিহতের পরিবার ও ত্রিশাল থানা সূত্রে জানাযায়, গত শনিবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার ধানীখোলা ইউনিয়নের কাটাখালী আকন্দ বাড়ীর সুরুজ আলী আকন্দ ও তার ছেলে কাটাখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী নাঈম (৭) এক সাথে সকালের খাওয়া-দাওয়া করে। পরে পিতা সুরুজ আলী আকন্দ নিজ কর্মস্থল ঢাকা চলে যান। দুপুরে হঠাৎ করেই নাঈমকে কোথাও খোঁজে পাওয়া যাচ্ছে না মর্মে এলাকায় মাইকিং শুরু হয়। শনিবার সারাদিন ও সারা রাত তাকে বিভিন্ন জায়গায় খোজাখুজিঁ করেও পাওয়া যায়নি। রোববার সকাল থেকে পরিবারের সদস্যরা বাড়ীর আশ পাশের বিভিন্ন নদী, নালা, খাল, পুকুরে তালাশ শুরু করলে দুপুর ২টার দিকে আকন্দ বাড়ীর পশ্চিমে এমদাদ ম্যানেজারের আড়ার পশ্চিম দিকে নতুন মাটি দেখে এলাকাবাসী সন্দেহ করে। এ সময় তারা মাটি খুড়তে শুরু করে আর সেখানেই নাঈমের লাশ মাটি চাপা দেওয়া অবস্থায় পাওয়া যায়।
পরিবারের সদস্যরা লাশ শনাক্ত করে। খবর পেয়ে ত্রিশাল থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।
নিহত নাঈমের পিতা সুরুজ আলী আকন্দ জানান, সকালে এক সাথে খাওয়া দাওয়া করে আমি ঢাকা চলে যায়। বিকালে আমার সন্তানকে খুজে পাওয়া যাচ্ছেনা শুনে আবারও বাড়ীতে এসে সন্তানের মাটি চাপা দেওয়া নিথর দেহ দেখলাম। তিনি বলেন, যারা আমার নিষ্পাপ শিশুটিকে হত্যা করেছে আমি তাদের বিচার চাই।
ত্রিশাল থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এস.আই) আবুল কালাম দৈনিক লোকলোকান্তর জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য আগামীকাল (আজ) সোমবার ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হবে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান।

 

 

সর্বশেষ আপডেটঃ ৮:০০ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ১৮, ২০১৫