| দুপুর ১:৫৩ - শুক্রবার - ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ২০শে মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

শেরপুরের পল্লীতে অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

 

শেরপুর প্রতিনিধি:  ৯ অক্টোবর ২০১৫, শুক্রবার,
শেরপুরের পলস্নীতে অজ্ঞাত পরিচয় এক ব্যক্তির (৪৮) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ ৯ অক্টোবর শুক্রবার বিকেলে শেরপুর জেলা সদরের চরমোচারিয়া ইউনিয়নের টালিয়াপাড়া গ্রামের একটি ছন খেতের ভেতর থেকে সদর থানা পুলিশ বস্তাবন্দি অবস্থায় লাশটি উদ্ধার করে। নিহতের পরিচয় সনাক্ত করতে লাশটি বর্তমানে সদর থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আজ শুক্রবার দুপুর একটার দিকে একজন নারী শেরপুর-জামালপুর মহাসড়কের পশ্চিমপার্শ্বে টালিয়াপাড়া গ্রামের একটি ছন খেতের ভেতর লেপ ও কম্বল দিয়ে মোড়ানো অবস্থায় একটি ছালার বসত্মা দেখতে পান। এটি দেখে ওই নারীর সন্দেহ হলে তিনি বিষয়টি গ্রামের অন্য লোকদের জানান। গ্রামবাসী ঘটনাস’লে এসে ওই ছালার বসত্মার ভেতর একটি লাশ দেখতে পান। পরে এলাকাবাসীর নিকট থেকে সংবাদ পেয়ে শুক্রবার বিকেল তিনটার দিকে সদর থানা পুলিশ বসত্মাবন্দি ওই লাশটি উদ্ধার করেন।
শেরপুর সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বশির আহমেদ বাদল বলেন, উদ্ধার করা অজ্ঞাত পরিচয়ের ওই ব্যক্তির লাশ হাত-পা বাধা অবস্থায় ছিল। তাঁর গায়ের রঙ ফর্সা এবং পরনে ছিল সাদা রঙের হাফ-হাতা জামা ও ঘিয়ে রঙের ফুল প্যান্ট। তাঁর প্যান্টের পকেটে একটি রম্নমাল ছাড়া অন্য কিছু পাওয়া যায়নি। সুরতহাল প্রতিবেদনে নিহত ব্যক্তির গায়ে ধারালো কোন অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়নি। তবে থুতুনীর নীচে গলায় কালো রঙের দাগ দেখা গেছে।
এস.আই. বশির আরও জানান, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে, গত বৃহস্পতিবার গভীর রাত থেকে শুক্রবার ভোররাতের মধ্যে দুর্বৃত্তরা দূরবর্তী কোন বাড়িতে তাঁকে শ্বাসরোধের মাধ্যমে হত্যা করে টালিয়াপাড়া গ্রামের ছন খেতের ভেতর তাঁর লাশ ফেলে গেছে।
শেরপুর সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার মো. শাহজাহান মিঞা আজ শুক্রবার বিকেলে বলেন, পরিচয় সনাক্তের জন্য উদ্ধার করা লাশটি বর্তমানে সদর থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। নিহত ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া না গেলে পুলিশের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের ও ময়নাতদনেত্মর জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হবে। পুলিশ ঘটনাটি তদনত্ম করে দেখছে বলে তিনি জানান।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৬:৩৩ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ০৯, ২০১৫