| রাত ১১:৫৫ - শনিবার - ৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২২শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ৭ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

বাজিতপুর হাওর অঞ্চলের বাহের বালির মডেল স্কুলের সাফল্য ঃ নৌকাযোগে স্কুলে এনে শিক্ষার্থীদের পাঠাভ্যস ঃ

 

বাজিতপুর সংবাদদাতা : ৭ অক্টোবর ২০১৫, বুধবার,

কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর ্‌উপজেলার মাইজচর ইউনিয়নের বাহের বাড়িয়া এসি এসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়টি নির্মাণ কাজ শুরম্ন হয় ২০০৬ সালে শেষ হয় ২০১১ সালে। শিক্ষামন্ত্রনালয়ের আওতাধীন হাওর বেষ্টিত নিরক্ষর অভিভাবকদের সচেতনতা করার জন্য সরকার সারাদেশে এ রকম ৭০/৮০ টি বিদ্যালয় স্থাপন করেছেন। এতে প্রতি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে নির্মাণ খরচ হয়েছে ২ কোটি টাকারও অধিক। আজ বুধবার অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম এ কাশেম জানান, হাওরে নিরক্ষর দুর করার জন্য অত্র বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের ভালো পাঠাভ্যস দিয়ে যাচ্ছেন। তিনি বলেন স্কুল প্রতিষ্টাকালীন সময়ে মাত্র ১০০ শিক্ষার্থী দিয়ে এ প্রতিষ্টানের জয়যাত্রা শুরম্ন হয় । মাত্র ৩ বছরে ২ শতাধিক শিক্ষার্থীকে বর্ষাকালে কিশোরগঞ্জ -৫ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আফজাল হোসেন বড় একটি স্টিল বডি নৌকা উপহার দেন। এ নৌকা দিয়ে বর্ষাকালে মাইজচর ইউনিয়নের প্রায় ৪/৫ গ্রামের শিক্ষার্র্থীদেরকে স্কুল শুরম্ন ও ছুটির সময় আনা ও বাড়িতে পৌছে দেওয়া হয়। নবম শ্রেণীর কয়েকজন শিক্ষার্থীর সঙ্গে আলাপ করলে তারা বলেন, তাদের শিক্ষকরা ক্লাসে বসিয়ে পড়া শিখান । 2
তাদের কোন প্রাইভেট পড়তে হয় না । সহকারী শিক্ষক মোঃ তাজুল ইসলাম জানান, মাত্র ৫ জন শিক্ষক এমপিওভুক্ত রয়েছে এবং ৪ জন শিক্ষক বিদ্যালয় থেকে গত কয়েক মাস ধরে কোন বেতন না পেয়েও শিক্ষার্থীদের ঠিকই পাঠাব্যস দিচ্ছেন। বিদ্যালয়ের খেলার কোন মাঠ নেই । বুধবার সকাল ১০ টায় মাইজচর ইউনিয়নের বাহের বালি এসি এসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে সরেজমিন গেলে শিড়্গার্থী ও বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকারা জানান, ২০১৩ সনে এ বিদ্যালয়টি ৬ষ্ট শ্রেনী হতে ১০ ম শ্রেনী কার্যক্রম শুরম্ন হয়। ২০১৩ সনে অত্র বিদ্যালয়ের ১০ জন শিক্ষার্থী জে এস সি পরীড়্গায় অংশ গ্রহন করে । তম্মধ্যে ৮ জন শিক্ষার্থী মেধা তালিকায় পাশ করে । ২০১৪ সনে ১৩ জন শিক্ষার্থী জে এস সি পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে ১০ জন পাশ করে । ২০১৫ সনে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক (এসএসসি) ৮ জন শিড়্গার্থী পরীড়্গায় অংশ গ্রহন করে । এস এসসি পরীক্ষায় শত ভাগ পাশ করে । বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মোঃ এরশাদ উদ্দিন জানান, সরকারী ভাবে আরো অর্থ সহায়তা পেলে অত্র অঞ্চলের হাওর বেষ্টিত ইউনিয়নের গ্রামগুলোর অভিভাবকরা তাদের ছেলে মেয়েদের
স্কুলে পাঠাতে পারবে বলে উলেস্নখ করেন।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৭:৪৬ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ০৭, ২০১৫