| দুপুর ১২:২৬ - শুক্রবার - ৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ৬ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

পাকুন্দিয়ায় নিখোঁজ ব্যক্তির ছেলের সঙ্গে নিষ্ঠুর প্রতারণা !

 

সাখাওয়াত হোসেন হৃদয়, ৩১ আগস্ট ২০১৫, সোমবার: 
আধুনিক সভ্য যুগে সবকিছুই আধুনিক। পোশাকে আশাকে, চলাফেরায়, কথাবার্তায়, কাজেকর্মে সবকিছুতেই আধুনিকতার ছোয়া লেগেছে। মানুষের চিন-া চেতনাও হয়েছে অত্যাধুনিক। ডিজিটাল যুগে সবকিছুই হচ্ছে ডিজিটাল পদ্ধতিতে। এমনকি প্রতারণার কৌশলও হয়ে গেছে ডিজিটাল। আর সভ্য সমাজের এই সময়ে এসে এমন নিষ্ঠুর প্রতারণার ঘটনা হার মানিয়ে দেয় সবকিছুকেই।
এমনই এক নিষ্ঠুর প্রতারণার শিকার হয়েছেন নিখোঁজ হওয়া এক ব্যক্তির ছেলে। পিতার প্রতি পুত্রের মনের দুর্বলতার সুযোগে বিশ্বাস নামক শব্দটিকে মুছে দিয়ে প্রতারিত করা হয় তাকে।
আবুল হাসিম। বয়স ৫২। কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার আনোয়ারখালী গ্রামের মৃত আবদুল গফুরের ছেলে। সে গত শুক্রবার (২৮ আগস্ট) নান্দাইল উপজেলার তারের ঘাট পীরের বাড়ি জামে মসজিদে জুমআ’র নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর বাড়ি ফিরেনি।
ঘটনার পর আত্মীয় স্বজনসহ সম্ভাব্য স’ানে খোঁজাখুজি করিয়াও না পেয়ে পরদিন আবুল হাসিমের ছোট ছেলে জাজির হোসেন পাকুন্দিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেন। যার নং-১১৫৬, তারিখ-২৯/০৮/২০১৫ইং।
এদিকে পিতা আবুল হাসিমকে খুঁজে পাওয়ার জন্য মাইকিংসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার-প্রচারণা চালিয়েও যখন কোন হদিস পাওয়া যাচ্ছিল না। এমন সময়েই এক নিষ্ঠুর প্রতারণার শিকার হয়েছেন ওই ব্যক্তির বড় ছেলে জাহাঙ্গীর আলম!
ঘটনার ৩দিন পর (আজ) সোমবার ভোর ৬টায় জনৈক এক ব্যক্তির নিকট থেকে (০১৭৮৯৭৩৫৭৫৭) নম্বরে ফোন আসে নিখোঁজ ব্যক্তির বড় ছেলে জাহাঙ্গীর আলমের মুঠোফোনে। জনৈক ব্যক্তি ভোর ৪টায় টাঙ্গাইলের এলেঙা পুলিশ ফাঁড়ির নিকটে মুমূর্ষ অবস’ায় তার পিতাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেছে বলে জানায়। এসময় তার পিতার চিকিৎসার জন্য ১১ হাজার টাকা বিকাশ করতে বলে। জনৈক ব্যক্তির কথা বিশ্বাস করে ও পিতার সন্ধান পাওয়ার খবর শুনে আত্মহারা হয়ে অন্ধ বিশ্বাসে পাকুন্দিয়া বাজারে এসে ওই ব্যক্তির (০১৭৮৯৭৩৫৭৫৭) নম্বরে ১১ হাজার টাকা বিকাশের মাধ্যমে পাঠায় জাহাঙ্গীর আলম। কিন’ বিধিবাম। টাকা পাঠানোর কিছুক্ষণ পরই বন্ধ দেখায় ওই নম্বরটি। এতে মানসিকভাবে খুবই ভেঙে পড়ে জাহাঙ্গীর। সে বিশ্বাসই করতে পারছে না ‘এমনও’ কি হয়!
এ ব্যাপারে জাহাঙ্গীর আলম বলেন, পিতাকে খুঁজে না পেয়ে আমরা চরম মর্মাহত ও হতাশ। এই মুর্হূতে এভাবে একজন মানুষ প্রতারণা করে এতগুলো টাকা হাতিয়ে নিতে পারে ভাবতেও অবাক লাগে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৫:১৬ অপরাহ্ণ | আগস্ট ৩১, ২০১৫