| ভোর ৫:০৫ - শুক্রবার - ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ৩রা রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে কঠোর শাস্তির বিধান রেখে নতুন আইন : ওবায়দুল কাদের

নারায়ণগঞ্জ, ২৪ জুলাই ২০১৫ (বাসস) : সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সড়ক দুর্ঘটনার জন্য দায়ী সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তির বিধান রেখে ১৯৮৩ সালের মোটরযান অধ্যাদেশকে আইনে পরিণত করা হবে। এই বছরই তা সংসদে পাস করা হবে।
আজ শুক্রবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জের শিমরাইল মোড়ে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়ক ৮ লেনের কাজ পরিদর্শনে এসে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় মন্ত্রীর সাথে সড়ক ও জনপথ বিভাগের উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, বর্তমানে প্রচলিত আইনের ফাঁক ফোকর দিয়ে অপরাধীরা বেরিয়ে যায়। প্রকৃত অপরাধীদের বিচার হয় না। দুর্ঘটনা হয়, যাদের যায় তাদেরই বোঝে, কিন্তু অন্য কারো কিছু যায় আসে না।
তিনি বলেন, দুর্ঘটনার পরে যেসব তদন্ত কমিটি গঠন করা হয় তার বাস্তব উপযোগীতা আছে বলে মনে হয় না। এই তদন্ত কমিটিটা হয় দায়সারা গোছের। এই তদন্ত কমিটিতে কোন কাজ হচ্ছে না।
সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী বলেন, এবারের ঈদযাত্রা ভালো হলেও, ঈদের পরে সড়কের অবস্থা ভালো থাকলেও যে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে এগুলোকে সড়ক দুর্ঘটনা বলবো না, এগুলো রোড ক্র্যাশ।
বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম প্রান্তে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কক্সবাজার থেকে সৈয়দপুর পর্যন্ত একজন চালকের পক্ষে গাড়ি চালাতে গেলে এই ধরণের ঘটনাকে আমি স্বাভাবিক বলবো না। কারণ চালক তখন ঘুমে ঢুলুঢুলু অবস্থায়, এই অবস্থায় দুর পাল্লায় একজন চালক রাখা হয়, সেও তো একজন মানুষ সে ও তো ক্লান্ত ও পরিশ্রান্ত হবে এবং সেটাই হয়েছে। বেপরোয়া গাড়ি চালাচ্ছিল। এ পর্যন্ত সড়কের কারণে কোথাও কোন দুর্ঘটনা ঘটেনি।
ঝুকিপূর্ণ বাক প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, সড়ক-মহাসড়কে ১৪৪টি দুর্ঘটনাপ্রবণ বাকগুলোকে চিহ্নিত করে সেগুলোর জন্য ১৬৫ কোটি টাকার প্রজেক্ট হাতে নেয়া হয়েছে, যার ৫০ শতাংশ কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। বাকিগুলোর দরপত্র সম্পন্ন হয়েছে। এতে হতাশ হওয়ার কোন কারণ নেই। সড়ক দুর্ঘটনার জন্য দায়ী অটোরিক্সা ও নসিমন। এগুলোর বিরুদ্ধে আগামী ১ আগস্ট থেকে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৯:৪৭ অপরাহ্ণ | জুলাই ২৪, ২০১৫