| সন্ধ্যা ৬:৪৫ - বুধবার - ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ - ১০ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

সমস্যায় জর্জরিত ধোবাউড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

ধোবাউড়া প্রতিনিধি,২৯ জুন ২০১৫, সোমবার: ময়মনসিংহের সীমান্তবর্তী ধোবাউড়া উপজেলায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মাত্র একটি। জেলা সদর থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে রয়েছে নানা সমস্যা। একমাত্র জেনারেটরটি ১৫ বছর যাবৎ বাক্সবন্ধী অবস্থায় পড়ে আছে। তীব্র লোডশেডিং এ রোগীরা সুস্থ্য হওয়ার বদলে আরও অসুস্থ্য হয়ে পড়ছেন। এক রোগী বলেন এখানে চিকিৎসা নিতে এসে গরমে হাপিয়ে উটছি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলেন ১৯৯৯ সাল থেকে জেনারেটরটি বন্ধ রয়েছে কারন এটি এত বেশী ক্ষমতা সম্পন্ন যে, প্রতি ঘন্টায় ৫২ লিটার তেল খরচ হয়। এদিকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে চলছে প্রাইভেট চিকিৎসা। রোগীদেরকে দিচ্ছেন অপ্রয়োজনীয় টেষ্ট। আর চর্তুদিক ঘিরে রেখেছে রিপ্রেজেনটিবরা। সাধারন রোগীরা এসে বসে আছে, ডাক্তারদের সেদিকে খেয়াল নেই। রবিবার বেলা ২ টায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় মেডিকেল এসিসট্যান্ট সালাহ উদ্দিন প্রাইভেট চিকিৎসায় ব্যস্ত। প্রতি রোগীর কাছ থেকে নিচ্ছেন ১০০ টাকা করে ভিজিট। এসময় সদর বাজারের রইছ উদ্দিন মাষ্টার চিকিৎসা নিতে এসে বসে আছেন কিন্তু ডাক্তারের খবর নেই। রিপ্রেজেনটিবদের পক্ষ থেকে কয়েকজন ফোন করার পর অবশেষে আসলেন মেডিকেল অফিসার সুরমা বেগম। এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আতাউল জলিল বলেন আমিতো একা সব দেখতে পারবনা আপনি আবাসিক মেডিকেল অফিসারকে বলেন। আবাসিক মেডিকেল অফিসার আখলাখ-উল হক প্রাইভেট চিকিৎসার ব্যাপারে সত্যতা প্রকাশ করে বলেন আমি বিষয়টি স্যারকে (টিএচএ) জানিয়েছি কিন্তু তিনি এ বিষয়ে কোন ব্যাবস্থা না নিলে আমার কিছু করার নেই। বিষয়টি জেলা সিভিল সার্জনকে জানালে তিনি বলেন অভিযোগ পেলে ব্যাবস্থানেওয়া হবে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ১১:১১ অপরাহ্ণ | জুন ২৯, ২০১৫