| রাত ১:১৩ - রবিবার - ২৭শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ২রা জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

তাড়াইল মুক্তিযোদ্ধা ডিগ্রি কলেজকে জাতীয়করণের ঘোষণায় সর্বসত্মরে আনন্দের বন্যা

 

আমিনুল ইসলাম বাবুল, তাড়াইল (কিশোরগঞ্জ) :
তাড়াইল মুক্তিযোদ্ধা ডিগ্রি কলেজকে জাতীয়করণের ঘোষণায় উপজেলার সর্বত্র আনন্দের বন্যা বইছে। দীর্ঘদিনের দাবি বাসত্মবায়ন হতে যাওয়ায় এই আনন্দে সামিল হয়েছেন সর্বস’রের মানুষ। রোবাবার দিনভর আনন্দ মিছিল, র‌্যালী, মিষ্টি বিতরণ ও সমাবেশে গোটা উপজেলা উৎসবের নগরীতে পরিণত হয়।
কলেজ সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯২ সালে উপজেলার সহিলাটি গ্রামে স’ানীয় লোকজনের দান করা সাড়ে ৪ একর জমিতে প্রতিষ্ঠিত হয় তাড়াইল মুক্তিযোদ্ধা কলেজ। শুরম্নতে প্রতিষ্ঠানটিতে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণীতে পড়াশোনর সুযোগ ছিল। পরবর্তীতে শিড়্গার্থী ও অভিভাবকদের দাবির মুখে ২০১২ সালের শুরম্নতে প্রতিষ্ঠানটিকে ডিগ্রি কলেজে উন্নীত করা হয়। গত কয়েক বছর ধরে এইচএসসি পরীড়্গার ফলাফলের দিকে দিয়ে কলেজটি উপজেলার মধ্যে সেরা তালিকার মধ্যে ছিল। এদিকে উপজেলায় কোন সরকারি উচ্চ শিড়্গা প্রতিষ্ঠান না থাকায় এলাকাবাসী কলেজটিকে জাতীয়করণের জন্য দীর্ঘদিন ধরেই দাবি জানিয়ে আসছিলেন। সর্বশেষ চলতি বছরের ২৬ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাড়াইল মুক্তিযোদ্ধা কলেজসহ দেশের বিভিন্ন জেলার ৭টি মহাবিদ্যালয় ও ৯টি উচ্চ বিদ্যালয়কে জাতীয়করণের ঘোষণা দেন। এ ঘোষণার পর থেকেই উপজেলার সর্বস’রের মানুষের মাঝে আনন্দ বিরাজ করছে। প্রধানমন্ত্রী এবং স’ানীয় সংসদ সদস্য শ্রম ও কর্মসংস’ান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নুকে অভিনন্দন জানিয়ে রোববার দুপুরে তাড়াইল সদরে আনন্দ মিছিল, র‌্যালী ও মিষ্টি বিতরণ করেছে সর্বসত্মরের মানুষ। পরে মুক্তিযোদ্ধা কলেজ মাঠে সংড়্গিপ্ত সমাবেশের আয়োজন করা হয়। কলেজ অধ্যড়্গ এটিএম মোসত্মফার সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন ভূঁইয়া কাঞ্চন, উপজেলা আওয়ালীগ সভাপতি আজিজুল হক ভূঁইয়া, সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন লাকি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মো. ফখরম্নল ইসলাম ভূঞা ও জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক মোফাজ্জল হোসেন ভূঁইয়া প্রমুখ।

 

সর্বশেষ আপডেটঃ ৭:০৭ অপরাহ্ণ | জুন ০৭, ২০১৫