| সকাল ১১:১০ - সোমবার - ২১শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ২৬শে রবিউস সানি, ১৪৪৪ হিজরি

ঈশ্বরগঞ্জে ঘুমন্ত গৃহবধুকে হত্যা, স্বামীসহ আটক ৩

 

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি-০১ জুন, সোমবার,
ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে পৌরসদরের পাইভাকুরী গ্রামে তাসলীমা আক্তার (২৮) নামের এক গৃহবধুকে হত্যা করা হয়েছে। রোববার রাত ২টায় দূর্বৃত্তরা টিউবয়েলের হাতল দিয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় মাথায় আঘাত করে তাসলীমাকে হত্যা করে। এসময় তার পাশে থাকা ৫বছরের ঘুমন্ত শিশু হুমায়রাকেও মাথায় আঘাত করে গুরম্নতর আহত করে। হত্যাকান্ডের ক্লু বের করতে তাসলীমার স্বামীসহ ৩ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ।
এলাকাবাসী, নিহতের মা ও পুলিশ সূত্রে জানাযায়, উপজেলার পৌরসদরের পাইভাকুরী গ্রামের আজিজুলের সাথে প্রায় ১৪ বছর পূর্বে পাশ্ববর্তী শিমরাইল গ্রামের নাজিম উদ্দিনের মেয়ে তাসলীমার সাথে পারিবারিক ভাবে বিবাহ হয়। ১ ছেলে ও ১ মেয়েকে নিয়ে তাদের সংসার জীবন চলছিল। বছর খানেক আগে একই গ্রামের আজিজুলের ভগ্নিপতি রুস্তম আলী খুন হন। ওই খুনের প্রধান সন্দেহ ভাজন আসামী ছিলেন আজিজুল। চার মাস আগে জামিনে মুক্ত হয়ে সে বাড়িতে আসে। সপ্তাহ খানেক আগে আজিজুলের বোন নিহত রুস্তম আলীর স্ত্রী মীনা বেগমের সাথে রুস্তম আলী হত্যা নিয়ে তাসলীমার সাথে বাকবিতন্ডা হয়। ২৮ মে বৃহষ্পতিবার বাবার বাড়িতে বেড়াতে যায় তাসলীমা। ৩০মে শনিবার সন্ধ্যায় স্বামী আজিজুল তাসলীমাকে তার বাড়িতে নিয়ে আসে। ৩১মে রোববার রাত ২টায় তাসলীমা আক্তার স্বামীর বসত ঘরে ঘুমন্ত অবস্থায় খুন হন। এসময় তার ৫ বছরের মেয়ে হুমায়রা আহত হলেও পুত্র বাপ্পি (৮) ফুফুর বাড়িতে থাকায় সে বেঁচে যায়। হত্যাকান্ড নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩জনকে আটক করা হয়েছে। আটক কৃতরা হচ্ছে নিহতের স্বামী আজিজুল হক (৩৫), ভাগ্নে জহিরম্নল (২২), ভাগ্নে জামাই উজ্জ্বল মিয়া (২৩)। এসময় ঘটনাস’ল থেকে রক্ত মাখা বালিশ, বিছানার চাদর, একটি রেক্সিন, কাঁথা ও টিউবয়েলের একটি হাতল জব্দ করেছে পুলিশ।
নিহত তাসলীমা আক্তারের মা রহিমা খাতুন জানান, আজিজুলই আমার মেয়েকে হত্যা করেছে বলে সন্দেহ হয়। সপ্তাহ খানেক আগে আজিজুলের বোন নিহত রম্নসত্মম আলী স্ত্রী মীনা বেগমের সাথে রম্নসত্মম আলী হত্যা নিয়ে ঝগড়া হয়েছে বলে মেয়ে তাকে জানিয়েছিল। শনিবার সন্ধ্যায় আজিজুলই তাসলীমাকে তার বাড়ি থেকে নিয়ে যায়। এসময় আজিজুলের আচরণ রহস্য জনক ছিল বলে তিনি জানান।
ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল কাশেম তালুকদার জানান, হত্যাকান্ডটি রহস্যজনক। তিনি সকাল বেলা শুনে ঘরে গিয়ে রক্ত মাখা বিছানা ও টিউবয়েলের হাতল দেখতে পান।
ঈশ্বরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ বোরহান উদ্দিন জানান, হত্যা কান্ডের ক্লু বের করতে নিহতের স্বামী সহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে একটি হত্যা মামলার প্রস’তি চলছে।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৩:৩৯ অপরাহ্ণ | জুন ০১, ২০১৫