| বিকাল ৩:১২ - শনিবার - ৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ - ২২শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ - ৭ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

ত্রিশালে সড়ক দুর্ঘটনায় শিশু নিহত, আহত-২, ট্রেন থেকে ফেলে দিয়ে ব্যবসায়ীকে হত্যা, আহত ২

ত্রিশাল ব্যুরো অফিস, ২২ মে, শুক্রবার,
আজ  শুক্রবার সকালে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ড এলাকা সিএনবি গোডাউনের কাছে দ্রম্নতগামী প্রাইভেটকারের ধাক্কায় এক শিশু নিহত হয়েছে। গুরম্নতর আহত হয়েছে নিহতের বাবা ও আরেক ভ্যানের চালক। অন্যদিকে একই দিন ভোর সকালে ত্রিশালের আউলিয়ানগর রেল স্টেশনের কাছে চলন্ত ট্রেন থেকে ৩ জনকে ফেলে দিলে ঘটনাস্থলেই এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে। ট্রেন থেকে ফেলে দেওয়া আরো ২জন গুরুতর আহত হয়েছে। তাদেরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল হলেজ হাসপাতাল ও ঢাকায় প্রেরন করা হয়েছে।
ঘটনাস’ল ও ত্রিশাল থানা সূত্রে জানাযায়, শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সিএনবি গোডাউনের কাছে দ্রম্নতগামী প্রাইভেটকার ভ্যানকে ধাক্কা দেয়। এ সময় সড়ক পারা হয়ে যাওয়া সাইকেল আরোহীদের ধাক্কা দেয় রিক্সা ভ্যান। ফলে সাইকেল থেকে বাবা ছেলে দুই আরোহী ছিটকে পড়ে। সাইকেল আরোহী আবু তালহা (৭) কে প্রাইভেটকারটি চাপা দিলে ঘটনাস’লেই সে নিহত হয়। সে ত্রিশাল পৌরসভার মেয়র এবিএম আনিছুজ্জামানের ভাতিজা । দুর্ঘটনায় নিহতের পিতা শামছুজ্জামান মামুন ও রিক্সা ভ্যান চালক (অজ্ঞাত) গুরম্নতর আহত হয়। এলাকাবাসী তাদের উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।
ওদিকে শুক্রবার ভোর সকালে ঢাকা থেকে ময়মনসিংহমুখী লোকাল ট্রেন সেভেন আপ ত্রিশালের আউলিয়ানগর স্টেশনে আসার আগেই একটি বগিতে কয়েকজন ছিনতাইকারীদের কবলে পড়ে। এ সময় ছিনতাইকারীরা যাত্রীদের সব কিছু ছিনিয়ে নেয়। ত্রিশালের আউলিয়ানগর স্টেশন পার হওয়ার পর ত্রিশাল উপজেলার বাসিন্দা ও ঢাকার ব্যবসায়ী মুক্তা মিয়াসহ ৩জনকে ট্রেন থেকে ফেলে দেয় ছিনতাইকারীরা । এতে ঘটনাস’লেই মুক্তার মিয়া নিহত হন। তার বাড়ী ত্রিশাল উপজেলার বালিপাড়া ইউনিয়নের কাজীগ্রামে। তার বাবার নাম মৃত আঃ কদ্দুছ। এ ঘটনায় গুরম্নতর আহত আরেক যাত্রী নজরম্নল ইসলামকে প্রথমে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে। গুরম্নতর আহত অজ্ঞাত আরেক ব্যক্তিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
ত্রিশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরম্নজ্জামান জানান, দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করলেও ট্রেন থেকে ফেলে দিয়ে হত্যার বিষয়টি জানেন না বলে জানিয়েছেন।
ময়মনসিংহ জিআরপি থানার ইন্সপেক্টও আব্দুল আহাদ খান জানান, বিষয়টি আমি অবগত নই,কেউ অভিযোগ করেনি তবুও খোঁজ নিচ্ছি।

সর্বশেষ আপডেটঃ ৬:২১ অপরাহ্ণ | মে ২২, ২০১৫